কক্সবাজারের ঈদগাঁহতে মাছ বাজারে রাস্তা বন্ধ করে স্থাপনা নির্মাণ!

 কক্সবাজার প্রতিনিধি
  • Update Time : বুধবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১১:০২ pm
  • ৫৩ বার পড়া হয়েছে

কক্সবাজার সদরের বাণিজ্যিক নগরী হিসেবে খ্যাত ঈদগাঁহ বাজারের মাছ, মাংস ও তরকারি বাজারের প্রধান রাস্তাটি রাতারাতি বন্ধ করে দিয়ে স্থাপনা নির্মাণের গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। বাজারের ব্যবসায়ী ও সর্বসাধারণের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে এ নিয়ে।

প্রভাবশালী একটি মহল মোটা অংকের লেনদেনে রাতারাতি রাস্তাটির দু’পাশ টিন দিয়ে বন্ধ করে দিতে মদদ যুগিয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি।

জানা যায়, ঐতিহ্যবাহী ঈদগাঁহ বাজারের মাছ মাংস ও তরকারি বাজারে যাওয়া-আসার প্রধান রাস্তাটি সোমবার দিবাগত রাতের আধাঁরে টিনের ঘেরা দিয়ে বন্ধ করে দেয়।বাজার ব্যবসায়ী ও বাজার মুখো সাধারন জনগন পরদিন সকালে বাজারে এসে প্রধান রাস্তাটি বন্ধ দেখে বিস্মিত ও ক্ষুব্ধ হয়। তাদের প্রশ্ন কিভাবে কয়েক দশকের এ রাস্তাটি রাতারাতি বন্ধ করে দখলে নিল।

তারা আরো জানান, বিগত মাসাধিককাল পূর্বেও জায়গাটি দখলের চেষ্টা করলে স্থানীয় একটি পক্ষের বিরোধিতায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে দখলে নিতে ব্যর্থ হয়। তারপর কয়েক দফা চেষ্টা করে সোমবার রাতে হঠাৎ এমনকি হলো গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি রাতের আঁধারে বন্ধ করে দিল বিনা বাঁধায়? এর পেছনে যারা মদদ যুগিয়েছে তাদের সাথে জায়গার মালিক দাবিদার নুরুল আলম নামের প্রবাসীর লোকজনের সাথে মোটা অংকের অর্থ লেনদেনের আশঙ্কা করছে সচেতন মহল। তা না হলে বাজার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসন কিভাবে রহস্যময় ভূমিকা পালন করে চলছে।

সরেজমিনে গেলে মানিক নামের এক যুবক নিজেকে জায়গার মালিক চৌফলদন্ডীর প্রবাসী নুর আলমের ভায়রা ভাই পরিচয় দিয়ে বলেন, রাস্তাসহ জায়গাটি খতিয়ানভুক্ত, সে স্থাপনা নির্মাণে মাত্র সহযোগিতা করছে এবং এতে কোন খাস জায়গা নেই। তবে জায়গা সম্পর্কে অবগত কতিপয় লোক জানান, রাস্তা ছাড়াও এতে কিছু সরকারি খাস জায়গা রয়েছে এবং মালিকানা নিয়েও বিরোধ রয়েছে।

রাস্তা বন্ধের বিষয়ে ঈদগাঁহ ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা জেসমিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন জায়গাটি পরিমাপে মালিকের বলে চিহ্নিত করা হয়।

সদর উপজেলা সহকারী ভূমি কমিশনার শাহরিয়ার মুক্তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জায়গাটির প্রকৃত অবস্থা নির্ণয়ে ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তাকে দেখ ভালের জন্য বলেছেন বলে জানান।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এইচ এম মাহফুজুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনিও একই কথা বলেন।

সদর উপজেলা চেয়ারম্যান কায়সারুল হক জুয়েলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষকে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে বলবেন।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(রাজস্ব) আশরাফুল আফসারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দ্রুত এ বিষয়ে খোঁজ নিচ্ছেন বলে জানান।

প্রভাবশালী মহলের ভয়ে নাম প্রকাশ না করার শর্তে বাজারের ব্যবসায়ী ও সচেতন জনগণ সরোজমিনে তদন্তপূর্বক ঐতিহ্যবাহী ঈদগাঁহ বাজারের জৌলুশ রক্ষা ও ভোগান্তি থেকে জনগণকে রক্ষায় রাস্তাটি উন্মুক্ত করে দিতে জেলা প্রশাসনের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 cplusbd.net