ঘূর্ণিঝড় বুলবুল: কলকাতায় নিহত ১

সিপ্লাস ডেস্ক
  • Update Time : শনিবার, ৯ নভেম্বর, ২০১৯, ০৮:১৪ pm
  • ১৪৬২ বার পড়া হয়েছে

শক্তি বাড়িয়ে ক্রমশ এগিয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। আঘাত হানা শুরু করেছে সুন্দরবনের বাংলাদেশ অংশে।

শনিবার সন্ধ্যায় হালাকা ভাবে আছড়ে পরছে পশ্চিমবঙ্গ (সাগরদ্বীপ)-বাংলাদেশ (খেপুপাড়া) উপকূলবর্তী এলাকায়। ঝড়ের সর্বোচ্চ গতিবেগ হতে পারে ঘণ্টায় ১৩৫ কিলোমিটার। তবে ইতোমধ্যে সুন্দরবনের বাংলাদেশ অংশে আঘাত হানা শুরু করেছে বুলবুল।

ভারতীয় আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, রাত ৮টা থেকে ১০টার মধ্যেই এই ঘূর্ণিঝড় পুরোদমে আছড়ে পড়তে পারে। যদিও মাটিতে আছড়ে পড়ার আগে ঝড়ের গতিবেগ কিছুটা কমে ঘণ্টায় ১২০ কিলোমিটার হতে পারে। এই মুহূর্তে সাগরদ্বীপ থেকে ৮০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে ঘূর্ণিঝড়টি। বুলবুলের প্রভাবে এদিন সকাল থেকেই কলকাতাসহ পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ বঙ্গের জেলাগুলোতে লাগাতার বর্ষণ চলছে। সাথে চলছে মাঝারি ঝোড়ো হাওয়া।

বুলবুলের প্রভাবে কলকাতার বাবুঘাটসহ রাজ্যটির দক্ষিণবঙ্গের একাধিক ফেরি পারাপার বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বন্ধ রয়েছে স্কুল-কলেজও। মৎসজীবীদের সমুদ্রে মাছ ধরার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

ইতিমধ্যেই রাজ্যের একজনের প্রাণহানি ঘটেছে। দক্ষিণ কলকাতার বালিগঞ্জে গাছ উপড়ে পড়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। নিহত ব্যক্তির নাম সোহেল শেখ (২৫)। জানা গেছে, বালিগঞ্জের একটি ক্লাবে রান্নার কাজ করতেন বিহারের বাসিন্দা সোহেল। ট্যাংরার বাসা থেকে কাজে যোগ দেওয়ার জন্য দুপুরে ওই ক্লাবে যাচ্ছিলেন। ক্লাবে প্রবেশের মুখেই বিপত্তি ঘটে। একটি গাছ ভেঙে পড়ে তার মাথায়। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তার।

ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় তৈরি রাজ্য প্রশাসনও। রাজ্য সরকারের সচিবালয় নবান্নে খোলা হয়েছে। সকাল থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যনার্জি পরিস্থিতির তদারকি করছেন এবং জেলা প্রশাসনকে প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিচ্ছেন। উপকূলবর্তী এলাকাগুলোতে জারি করা হয়েছে চূড়ান্ত সতর্কতা। পশ্চিমবঙ্গ-বাংলাদেশ উপকূলবর্তী থেকে ইতিমধ্যেই প্রায় ৫৯ হাজার মানুষকে নিরাপদে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বুলবুল পরবর্তী বিপর্যয়কে এড়াতে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে ভারতীয় কোস্ট গার্ড সদস্যদের। পারাদ্বীপ, ধমরা, সাগরদ্বীপ উপকূল থেকে সমস্ত জাহাজকে নিরাপদ দূরতে সরিয়ে রাখা হয়েছে।

টুইট করে মমতা জানান, ‘ঘূর্ণিঝড় বুলবুল বাংলার ওপর দিয়ে অতিবাহিত করবে। আমাদের রাজ্য প্রশাসন চব্বিশ ঘণ্টা নজরদারি চালাচ্ছে। যে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আমরা সব রকমের পদক্ষেপ নিয়েছি। বিশেষ কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে এবং জাতীয় দুর্যোগ মোকাবিলা বাহিনীকে মোতায়েন করা হয়েছে।’ সেই সাথে মানুষকে অযথা আতঙ্কিত না হয়ে মানুষকে ত্রাণ ও উদ্ধারকাজে প্রশাসনকে সহায়তা করার আহ্বান জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

ঘূর্ণিঝড়ের ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকে বাঁচতে কলকাতা নেতাজী সুভাষ চন্দ্র আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরেও পরিষেবা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে আগামীকাল রবিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ১২ ঘণ্টা এই নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে।

ইন্ডিয়ান এয়ারপোর্ট অথরিটির তরফে এক বিবৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, ‘ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কার কারণে ৯ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টা থেকে ১০ নভেম্বর সকাল ৬টা পর্যন্ত বিমান পরিষেবা বন্ধ থাকবে।’

বুলবুলের প্রভাবে উড়িষ্যাতেও একাধিক বড় বড় গাছ, বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। যার ফলে সড়ক যোগাযোগ ব্যহত। যদিও এখনও পর্যন্ত সেখানে প্রাণহানির কোন খবর নেই।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 cplusbd.net
Shares