নিউজটি শেয়ার করুন

স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই আনোয়ারার পশুর হাটে

স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই আনোয়ারার পশুর হাটে

আনোয়ারা প্রতিনিধি: আনোয়ারা উপজেলার পশুরহাটগুলোতে স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই। ক্রেতা-বিক্রেতা-ইজারাদার কেউই মানছেননা স্বাস্থ্যবিধি। মুখে মাস্ক নেই অধিকাংশ মানুষের। সবকটি বাজারে উপচে পড়ছে মানুষের ভীড়। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে স্বাস্থ্যবিধি মানার শর্তে পশুর বাজার বসানোর কথা থাকলেও তার ছিটেফোঁটাও মানতে দেখা যায়নি আনোয়ারায় শুক্রবারের বিভিন্ন পশুরহাটগুলোতে।

এতে করে আনোয়ারা উপজেলায় করোনা প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

শুক্রবার বিকালে সরেজমিন সরকার হাট ও বটতলী রুস্তমহাট এলাকায় গিয়ে দেখা যায়- ক্রেতা, বিক্রেতাদের মধ্যে অধিকাংশ মানুষের মুখে মাস্ক নেই। বাজারের ইজারাদারদের মুখেও মাস্ক নেই। সরকারহাট পশুর বাজারে হাজারো মানুষের ভীড়ে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত। সরকার হাট পশুর বাজারে সড়কের উপর এলোমেলোভাবে গাড়ীতে গরু উঠানামা করানোর ফলে আনোয়ারা -বাঁশখালী সড়কে দীর্ঘ তিন কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়। বাজারের ইজারাদারের পক্ষ থেকে পর্যাপ্ত স্বেচ্ছাসেবক না থাকার কারণে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। আনোয়ারা থানা পুলিশ ও ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা যানজট থামাতে হিমশিম খেয়ে যাচ্ছেন। আগামী সোমবার আবারো বসবে এই দুই পশুর হাট।

এভাবে নিয়ন্ত্রণহীনভাবে চললে এই দিনে আরো তীব্র যানজট সৃষ্টি হবে বলে জানিয়েছেন একাধিক যাত্রী। তাছাড়া বাজারে আসা ক্রেতা বিক্রেতাদের স্বাস্থ্যবিধি মানতে আরো সচেতন করা না গেলে পরবর্তীতে এর প্রভাব প্রকট আকার ধারণ করবে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

এ ব্যাপারে বাজারের ইজারাদার জয়নাল আবেদীন হেলাল বলেন, কোরবানীর পশুর বাজার। এখানে একটু ঝামেলা তো হবেই। সড়কে যানজট নিরসনে পুলিশের পাশাপাশি আমাদের স্বেচ্ছাসেবকরা কাজ করছে।

আনোয়ারা থানার ওসি এস এম দিদারুল ইসলাম সিকদার বলেন, কোরবানির পশুর হাটের নিরাপত্তা ও যানজট নিরসনে থানা পুলিশ ও ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা নিয়োজিত রয়েছে। বিশৃঙ্খলা যাতে না হয় সেজন্য পুলিশ সজাগ রয়েছে।