নিউজটি শেয়ার করুন

সবাইকে ত্যাগের মহিমায় কাজ করতে হবে : উপমন্ত্রী নওফেল

মোহরা গৌরাঙ্গ নিকেতন উৎসব সম্পন্ন

সিপ্লাস ডেস্ক: শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এমপি বলেছেন, সবাইকে ত্যাগের পথে থেকে কাজ করে সমাজ তথা দেশকে এগিয়ে নিতে হবে। সকলের মাঝে ঐক্য ও স্বচ্ছতা থাকা দরকার।

তিনি বলেন, ধর্ম চেতনা ও ধর্মবোধ মানুষকে সত্য ও সুন্দরের পথে পরিচালিত করে। ধর্মবোধ মানুষকে ন্যায়ের শিক্ষা দিয়ে সভ্য করেছে। গৌরাঙ্গ নিকেতন উৎসব দীর্ঘ ৩২ বছর ধরে চলে আসছে। আরো যুগ যুগ ধরে এই উৎসব চলবে এটা সকলের প্রত্যাশা।

তিনি বলেন, সুকুমার চৌধুরীর পুত্র অমিত চৌধুরী প্রতিজ্ঞা করেছে যে, মানব সেবাই হচ্ছে আসল ধর্ম, সে কাজের অংশ হিসেবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম সে এসব কাজ করে যাবে। আমি বিশ্বাস করি সেটা তার পক্ষে সম্ভব হবে। প্রথমবারের মতো সে দায়িত্ব নিয়ে এই উৎসবে বর্ণাঢ্য আয়োজন করেছে সফলতার সাথে। আমি অমিতকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে বাংলাদেশ আছে বলেই আমরা একটি অসাম্প্রদায়িক সমৃদ্ধ বাংলাদেশ স্বপ্ন দেখতে পারি। সবাই প্রধানমন্ত্রীর জন্য প্রার্থনা করবেন।

তিনি গত ২৬ ফেব্রয়ারি নগরীর মধ্যম মোহরাস্থ শিল্পপতি সুকুমার চৌধুরী বাড়ি প্রাঙ্গণে আয়োজিত শিবকল্পতরু শ্রীমৎ স্বামী ঋষি অদ্বৈতানন্দপুরী মহারাজ স্মরণে শ্রীশ্রী লক্ষ্মী নারায়ন ও গৌর নিতাই বিগ্রহের ৩২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উৎসব চারদিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার সমাপনী দিনে উপহারস্বরূপ শিক্ষাসামগ্রী ও বস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তার বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়–য়া বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ধর্ম যার যার, উৎসব সবার।

তিনি বলেন, রাষ্ট্র পরিচালনার প্রতিটি ক্ষেত্রে সকল ধর্মের সকল মানুষের সমান অধিকার সমান মর্যাদা, তার প্রতিফলন হচ্ছে এই গৌরাঙ্গ নিকেতন উৎসবে। আমাদের যে একতা, অসাম্প্র্রদায়িক বন্ধন, সম্প্রীতির সম্পর্ক, বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক, এটাকে কেউ বিভক্ত করতে পারবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকল ধর্মের সকল মানুষকে একই কাতারে নিয়ে এসেছে। এই একতা ও সম্প্রীতির বিরুদ্ধে যারা বিরোধীতা করবে আমরা সকলে মিলে তা প্রতিহত করবো।

তিনি বলেন, এই উৎসব সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উৎসবে পরিণত হয়েছে। আমাদের সবাইকে মিলে এভাবে একতাবদ্ধ থেকে যার যার ধর্মীয় বিশ্বাসকে অক্ষুন্ন রেখে এই উৎসবকে ধরে রাখতে হবে। তবে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে এবং এদেশের উন্নতির সমৃদ্ধি আসবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সিডিএ’র সাবেক চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ আবদুচ ছালাম বলেছেন, মোহরায় গৌরাঙ্গ নিকেতনের উৎসবে প্রত্যেকবারের মতো এবারও বিশাল আয়োজন, বিশাল সমাগম। এতে আমি খুবই আনন্দিত। আমি একটা কথা সুকুমার চৌধুরীকে বলতাম সবসময়। কারণ এই আয়োজনকে কেন্দ্র করে মোহরা এলাকায় আগমন ঘটে মন্ত্রী, এমপি সহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের। উৎসবে মেতে উঠে হাজার হাজার সনাতনী মানুষ। আমি সুকুমার চৌধুরী ও তার পুত্র অমিত চৌধুরীকে অনুরোধ করবো কোনভাবে যাতে এই উৎসব বন্ধ না হয়। আন্তরিকতা থাকলে, সৎ উদ্দেশ্য থাকলে কিভাবে একটা অনুষ্ঠান সফল করা যায়, তার প্রমাণ হলো সুকুমার চৌধুরী। সুকুমার চৌধুরী এই উৎসবের মাধ্যমে তা দেখিয়ে দিয়েছেন। এই উৎসব মোহরার মাটিতে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

গৌরাঙ্গ নিকেতন উৎসব উদ্যাপন পরিষদের কো-চেয়ারম্যান অমিত চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের আহবায়ক মহিউদ্দীন বাচ্চু, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নির্মল রজারিও, বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক নির্মল কুমার চ্যাটার্জী, বাংলাদেশ বৌদ্ধ ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ভিক্ষুক সুনান্দপ্রিয়, রাউজান পৌরসভার সাবেক মেয়র দেবাশীষ পালিত, সাতকানিয়ার পৌর মেয়র জোবায়ের হোসেন, চসিক কাউন্সিলর জহরলাল হাজারী, শৈবাল দাশ সুমন, পুলক খাস্তগীর, কাজী নুরুল আমিন মামুন, মো. এসরারুল হক এসরাল, মহিলা কাউন্সিলর রুমকি সেনগুপ্ত, চট্টগ্রাম জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি শ্যামল পালিত, চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি রুমেল বড়য়া রাহুল, দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এসএম বোরহান উদ্দিন, আনোয়ারা উপজেলা যুবলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সন্তোষ কুমার নন্দী, চান্দগাঁও থানা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. নুরুন নবী সাহেদ, সাধারণ সম্পাদক শহিদুল আলম শহীদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুল আলম বাবু, মহানগর যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য স্বপন।

সংগঠক নিউটন কুমার মজুমদারের সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন গৌরাঙ্গ নিকেতন উৎসব উদ্যাপন পরিষদের আহবায়ক ডা. সজল বৈদ্য ও সদস্য সচিব ডা. বিকাশ সেন। বক্তব্য রাখেন ডা. দুলাল ঘোষ, অধ্যাপক দিলীপ চৌধুরী, দীপক দেওয়ানজী, সন্তোষ কুমার ঘোষ, উৎসব উদযাপন পরিষদের উপদেষ্টা মনোজ কুমার দত্ত, কৃষ্ণপদ ঘোষ, সঞ্জয় চৌধুরী, অ্যাড. শিবু চন্দ্র মজুমদার, অ্যাড. সাধন চন্দ্র মজুমদার, চান্দগাঁও থানা পূজা পরিষদের সভাপতি সমীরণ মল্লিক, সন্তোষ ঘোষ, অসীম চৌধুরী মিন্টু, আশুতোষ চৌধুরী, প্রিয়তোষ চৌধুরী, সমর দেব স্বপন, অসিত চৌধুরী, নিপু ভট্টাচার্য্য, টিটন চৌধুরী, পঙ্কজ চৌধুরী, পীযুষ চৌধুরী বসু, রঞ্জন সেন লবা, যীশু চৌধুরী, মিশু চৌধুরী প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে অতিথিবৃন্দ উপহারস্বরূপ শিক্ষাসামগ্রী ও বস্ত্র বিতরণ করেন।

সভাপতির বক্তব্যে সমাজসেবক অমিত চৌধুরী গৌরাঙ্গ নিকেতন উৎসবের চারদিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালায় আগত অতিথিবৃন্দ, ভক্তমন্ডলী, সংশ্লিষ্ট প্রশাসন, সংশ্লিষ্ট সংগঠনের নেতৃবৃন্দ মোহরাবাসীসহ যাদের সহযোগিতায় অনুষ্ঠান সুন্দর ও সুশৃঙ্খলভাবে সম্পন্ন হয়েছে তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।