নিউজটি শেয়ার করুন

লেবুর দাম আকাশ ছোঁয়া, তেতুলেই ভরসা !

সিপ্লাস প্রতিবেদক: দেশজুড়ে হঠাৎ করেই আকাশ ছুঁয়েছে লেবুর দাম। চট্টগ্রামেও ছাড়িয়ে গেছে লেবুর দামের অতীতের সব রেকর্ড। খুচরা বাজারে প্রতি হালি বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১৬০ টাকায়। যা পাইকারি বাজারে ৬০ থেকে ১০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায় একই চিত্র।

লেবু ব্যবসায়ীরা জানান, লেবুর ফলন স্মরণকালের সর্বনিম্ন হওয়ায় এবার সর্বোচ্চ দামের রেকর্ড ছুঁয়েছে। তারা জানান, বৃষ্টি না হওয়ায় লেবুর ফলন কম। তাই গত মাস থেকে বাজারে লেবুর সরবরাহও কম।

নগরীর বিভিন্ন কাঁচাবাজার সরেজমিন ঘুরে এ চিত্র দেখা যায়।

কেউ কেউ লেবুর দামে অস্বস্তি প্রকাশ করছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও।

লেবুর আকাশ ছোঁয়া দাম প্রসঙ্গে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের গ্রাফিক্স ডিজেইনার জয়নাল আবেদিন কাজল সিপ্লাসকে বলেন, এক পিস পাঁচ টাকার লেবু বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা করে, সে লেবু আবার চিপতে চিপতে তিতা বের হয়ে যায় কিন্তু রস বের হয় না। অবস্থা যা দেখতেছি, রমজানে লেবুর শরবত আর খাওয়া হবে না তেতুল দিয়েই কাজ সারতে হবে। বেশ কিছুদিন যাবত লেবুর বাজার চড়া। রমজান ও লকডাউনের কারণে তা আজকে দেড়শ’ ছুঁয়েছে।

আরেকজন ক্রেতা সাইদুর রহমান। তারও একই মন্তব্য, লেবুর বাজার চড়া, এক হালি লেবুর দামে এক কেজি মালটা পাওয়া যায়। লেবু কিনতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

জাবেদ নামের একজন ক্রেতা বলেন আগে যে লেবু বিশ টাকায় কিনতাম এখন সেই লেবু কিনলাম চারগুণ বেশি টাকা দিয়ে।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও চলছে লেবুর দাম নিয়ে লেখালেখি।

আল রহমান নামে এক সাংবাদিক ফেইসবুকে লিখেছেন “আলহামদুলিল্লাহ! পবিত্র রমজানে ইফতারের জন্য চট্টগ্রামের অভিজাত কাজীর দেউড়ি বাজারের সবচেয়ে বড় লেবুগুলো কিনতে পারলাম। তিনটি ১৩০ টাকা। যে চাষির বাগানে এ লেবু হয়েছে, আড়তদার, পাইকার, দোকানিসহ সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা। নিন্দুকেরা বলবেন, পাতিলেবু দেড় ডজন পাওয়া যেত এ দামে। কিন্তু লেবুর আসল রস, স্বাদ, সুবাস, গুণাগুণ কি পাওয়া যেত?”

লেবুর এই আকাশছোঁয়া দামে ক্রেতাদের মতো বিস্মিত দোকানদাররাও।

অনেকে বলছেন, লেবুর দাম বৃদ্ধি পায় সাধারণত রমজান মাসে। তবে কখনো এভাবে দাম বাড়তে দেখিনি। বর্তমানে লেবুর দাম অতীতের সকল রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। লেবুর ফলন কম হওয়ায় সরবরাহও কম। তাই দাম চড়া।

এখানে বিক্রেতাদের কিছু করার নেই বলেও মন্তব্য করছেন ব্যবসায়ীরা। তাদের দাবী ফলন কম হওয়ায় দামে এমন অস্থিরতা বিরাজ করছে।