নিউজটি শেয়ার করুন

মহেশখালীতে চাঞ্চল্যকর স্কুল ছাত্র নির্যাতনের ঘটনার মামলায় ইউপি সদস্যসহ ২ জন কারাগারে

মহেশখালী প্রতিনিধি: কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়নে চুরির অপবাদ দিয়ে এক স্কুল ছাত্রকে নির্যাতনের ঘটনায় স্থানিয় ইউপি সদস্যসহ ২ জনকে কারাগারে প্রেরণ করেছেন মহেশখালী থানা পুলিশ।

গত ২৭ মে (বুধবার) সকাল ১১ টার সময় পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৩ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের আটক করেন। আটকৃতরা হলেন উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়নের এমইউপি মোহাম্মদ শরীফ, গ্রাম পুলিশ অাবু তাহের ও মাষ্টার ছালেহ আহমদ। তবে চাঞ্চল্যকর এঘটনায় সম্পৃক্তা না থাকায় জিজ্ঞাসাবাদের পর মাস্টার ছালেহ আহমদকে ছেড়ে দিলেও অভিযুক্ত মেম্বার ও চৌকিদার দুইজনকে আটক দেখিয়ে গত বৃহস্পতিবার মহেশখালী থানার পুলিশ বাদী হয়ে শিশু নির্যাতনের ঘটনায় মামলটি দায়ের করেন। যার মামলা নং ১৯/২০ ইং।

জানা গেছে, ওই শিক্ষক নির্যাতনের জন্য নই মুলত আইনের কাছে ছাত্রটিকে সোর্পদ করেছিলো। চুরির অপবাদে ৮ম শ্রেণীতে পড়ুয়া ওসমান গনি (১৩) উপর কালারমারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের এমইউপি মোহাম্মদ শরীফের নির্দেশে গ্রাম পুলিশ আবু তাহের অমানবিক নির্যাতন চালায় বলে চৌকিদার আবু তাহের প্রাথমিকভাবে শিকার করেছে।

উল্লেখ্য ২২ মে ভোরে উপজেলার কালারমারছড়া নয়াপাড়া গ্রামে মাস্টার ছালেহ আহমদের বাড়ীতে এ লোমহর্ষক ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি প্রভাবশালী মহল দামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করলে নির্যাতনের একটি ভিড়ি সামাজিক যোগাযযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে এক্যাশনে যায় পুলিশ। নির্যাতনের শিকার শিশুটি একই এলাকার চিকনি পাড়া গ্রামের কৃষক মোহাম্মদ হোছাইনের ছেলে মোহাম্মদ ওসমান (১৩)। তিনি কালারমারছড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্র।

মহেশখালী থানার ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধর জানান, এ ঘটনায় মামলা রুজু করা হয়েছে। তদন্ত পূর্বক অপরাপর অপরাধীদের পুলিশ সনাক্ত করতে মাঠে রয়েছে।