নিউজটি শেয়ার করুন

বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সকে হারিয়ে চমকে দিলো হাঙ্গেরি

সিপ্লাস ডেস্ক: প্রথম ম্যাচে ৮৩ মিনিট পর্যন্ত শিরোপাধারী পর্তুগালকে আটকে রেখে শেষ সময়ে পথ হারিয়ে হাতছাড়া হয়েছিল পয়েন্ট। এবার আরও দুর্দান্তভাবে নিজেদের মেলে ধরল হাঙ্গেরি, ভয়ডরহীন পারফরম্যান্সে জন্ম দিল আসরের অন্যতম সেরা অঘটন। বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সকে আটকে দিয়ে তুলে নিল মূল্যবান একটি পয়েন্ট।

বুদাপেস্টের পুসকাস অ্যারেনায় শনিবার ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে ‘এফ’ গ্রুপের ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র হয়েছে। আতিলা ফিওলার গোলে অনেকটা সময় এগিয়ে থেকে হয়তো আরও বড় কিছুর স্বপ্নই দেখতে শুরু করেছিল স্বাগতিকরা। তবে দ্বিতীয়ার্ধে দারুণভাগে ঘুরে দাঁড়ানো ফ্রান্স হার এড়ায় অঁতোয়ান গ্রিজমানের গোলে।

পুরো ম্যাচে গোলের উদ্দেশে ১৫টি শট নেয় ফ্রান্স, লক্ষ্যে ছিল ৪টি। বিপরীতে হাঙ্গেরির ৫ শটের ৩টি লক্ষ্যে ছিল।

এই মাঠেই পর্তুগালের বিপক্ষে হাঙ্গেরির ৩-০ গোলে হারা ম্যাচের মতো এদিনও গ্যালারিতে উপস্থিত ছিল ৬০ হাজারের বেশি দর্শক, যা উজ্জীবিত করে তোলে স্বাগতিক খেলোয়াড়দের। প্রতিপক্ষের সীমানায় আক্রমণ শানিয়েই দ্রুত রক্ষণে ফিরে যাওয়াটা ছিল দারুণ নজরকাড়া।

বল দখলে শুরু থেকে ফ্রান্স এগিয়ে থাকলেও পরিষ্কার সুযোগ তৈরি করতে পারছিল না তারা। চতুর্দশ মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে করিম বেনজেমার শট গোলরক্ষক পেতার গুলাসি ঝাঁপিয়ে ঠেকালেও বিপদমুক্ত করতে পারেননি। ফিরতি বল কাছ থেকে গোলরক্ষক বরাবর মারেন গ্রিজমান। যদিও পরে অফসাইডের পতাকা তোলেন লাইন্সম্যান।

তিন মিনিট পর ভালো একটি সুযোগ পান কিলিয়ান এমবাপে। লুকাস দিনিয়ের দারুণ ক্রস ডি-বক্সে পেয়ে হেড লক্ষ্যে রাখতে পারেননি অরক্ষিত পিএসজি তারকা। ৩১তম মিনিটে সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া করেন বেনজেমা। ডি-বক্সে এমবাপের ফ্লিকে ওয়ান-অন-ওয়ানে ভলিতে বল বাইরে মারেন রিয়াল মাদ্রিদ স্ট্রাইকার।

প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে দুবারের বিশ্বকাপ জয়ীদের চমকে দিয়ে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। মাঝমাঠে বাঁজামাঁ পাভার্দের ভুলে বল পেয়ে ফিওলা হেডে বাড়ান রোলান্দ সালাইকে। তার পাস পেয়ে দ্রুত এগিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে ডান পায়ের শটে কাছের পোস্ট দিয়ে ঠিকানা খুঁজে নেন ৩১ বছর বয়সী ডিফেন্ডার। পেছনে ছুটে যাওয়া রাফায়েল ভারানে পারেননি তাকে আটকাতে।

দেশের হয়ে প্রথম ৩৩ ম্যাচে ফিওলার ছিল না কোনো গোল। সেখানে নিজের শেষ চার ম্যাচে জালের দেখা পেলেন দুবার।

সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে পাঁচ ম্যাচ আর ৫২৭ মিনিট পর গোল হজম করল ফ্রান্স।

৫৭তম মিনিটে আদ্রিওঁ রাবিওকে তুলে উসমান দেম্বেলেকে মাঠে নামান ফ্রান্স কোচ। দুই মিনিট পর বার্সেলোনার এই ফরোয়ার্ডের শট লাগে পোস্টে।

৬৬তম মিনিটে সমতা ফেরায় ফ্রান্স। গোলরক্ষক উগো লরিসের লম্বা করে বাড়ানো বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে একজনের বাধা এড়িয়ে এমবাপে ডান দিক থেকে পাস দেন ছয় গজ বক্সে। পা ছোঁয়ালেও ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হন প্রতিপক্ষের ডিফেন্ডার। বাঁ পায়ের জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করেন গ্রিজমান।

তিন মিনিট পর এই বার্সেলোনা ফরোয়ার্ডের ফ্রি কিকে ডাইভিং ভলিতে চেষ্টা করেছিলেন এমবাপে, কিন্তু লক্ষ্যে থাকেনি। ৮২তম মিনিটে তরুণ এই ফরোয়ার্ডের শট ঠেকান গোলরক্ষক। যোগ করা সময়ে সুযোগ এসেছিল ভারানের সামনে। তার হেড যায় বাইরে দিয়ে।

দুই ম্যাচে একটি করে জয় ও ড্রয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে ফ্রান্স। সমান ম্যাচে ১ পয়েন্ট নিয়ে তিনে হাঙ্গেরি। একটি করে ম্যাচ কম খেলা পর্তুগাল ৩ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে ও জার্মানির পয়েন্ট শূন্য। রাতে মুখোমুখি হবে এই দুই দল।

শেষ রাউন্ডে আগামী বুধবার বুদাপেস্টে শিরোপাধারী পর্তুগালের মুখোমুখি হবে ফ্রান্স। একই সময়ে মিউনিখে জার্মানির বিপক্ষে খেলবে হাঙ্গেরি।