নিউজটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশের বন্ধু সাংবাদিক সায়মন ড্রিং আর নেই

সিপ্লাস ডেস্ক: বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু, একাত্তরে পাকিস্তানি বাহিনীর বাঙালী নিধনযজ্ঞের খবর যিনি পৌঁছে দিয়েছিলেন বিশ্বের কাছে, সেই ব্রিটিশ সাংবাদিক সায়মন ড্রিং মারা গেছেন।

গত শুক্রবার রোমানিয়ার একটি হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের সময় সায়মন ড্রিংয়ের মৃত্যু হয় বলে তার আত্মীয় ক্রিস বার্লাস গণমাধ্যমকে জানান।

রয়টার্স, টেলিগ্রাফ ও বিবিসির হয়ে সাইমন ড্রিং দীর্ঘদিন কাজ করেছেন বৈদেশিক সংবাদদাতা, টেলিভিশন উপস্থাপক এবং তথ্যচিত্র নির্মাতা হিসাবে। তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর।

চলতি শতকের গোড়ায় বাংলাদেশের প্রথম বেসরকারি টেরেস্টিয়াল টেলিভিশন একুশে টেলিভিশনের যাত্রা শুরুর সময় সাইমন ড্রিংয়ের ভূমিকা ছিল গুরুত্বপূর্ণ। বলা হয় তার হাত এদেশে টেলিভিশন সাংবাদিকতা নতুন মাত্রা পায়।

একাত্তরে বাংলাদেশের মানুষের পাশে দাঁড়ানোয় এই ব্রিটিশ সাংবাদিককে ২০১২ সালে মুক্তিযুদ্ধ সম্মাননায় ভূষিত করে বাংলাদেশ সরকার।

১৯৪৫ সালের ১১ জানুয়ারি ইংল্যান্ডের নরফোকে জন্ম নেওয়া সায়মন ড্রিং সাংবাদিকতা শুরু করেন ১৮ বছর বয়সে। দেখেছেন ২২টি যুদ্ধ, অভ্যুত্থান ও বিপ্লব। যুদ্ধক্ষেত্রের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে আহতও হয়েছেন একাধিকবার।

তার স্ত্রী ফিয়োনা ম্যাকফারসন একজন আইনজীবী এবং রোমানিয়া ভিত্তিক একটি দাতব্য সংস্থার নির্বাহী পরিচালক। ইভা ও ইনডিয়া তার যমজ মেয়ে। তার প্রথম স্ত্রীর ঘরে তানিয়া নামে আরো একটি মেয়ে রেখে গেছেন সায়মন ড্রিং।