নিউজটি শেয়ার করুন

পোর্ট কানেকটিং সড়কে নতুন দুর্ভোগ ওয়াসার পাইপ লিকেজ

শাহরুখ সায়েল: কয়েকবছর যাবত চট্টগ্রামের ‘লাইফ লাইন’ খ্যাত পোর্ট কানেকটিং সড়ক চট্টগ্রামের দুঃখ হয়ে দেখা দিয়েছে নগরবাসীর কাছে। সড়ক উন্নয়নের প্রসব বেদনায় অসহনীয় হয়ে উঠেছে জনজীবন।

তার সাথে এবার নতুন করে যুক্ত হলো ওয়াসার পাইপ লিকেজ। বেশকয়েকদিন যাবত বড়পোল থেকে নয়া বাজার পর্যন্ত কয়েক জায়গায় ওয়াসার পাইপ লিকেজ হয়ে রাস্তা ফুঁড়ে পানি বের হচ্ছে বিরামহীন ভাবে। এতে একদিকে যেমন ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে নবনির্মিত সড়কটি অপরদিকে হচ্ছে ওয়াসার পানি অপচয়।

বিষয়টি নিয়ে চট্টগ্রাম ওয়াসাকে জানানো হলেও কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ তুলেছে এলাকাবাসী।

সরেজমিনে গেলে এলাকাবাসী জানায়, প্রায় ১৫দিন ধরে চলছে এই বর্ষা দশা। রাস্তায় সারাক্ষণ পানি জমে থাকে। গর্ততে এমন ভাবে পানি জমে আছে দেখলে মনে হয় দিঘি। রাস্তায় পানি থাকায় চলাচলে অসুবিধা হচ্ছে। রাতে তো বটেই, দিনের বেলায়ও এখানে যানবাহন উল্টে যায়। পানির গর্তে পরে অনেকেই আহত হয়েছে।

এমনিতে দীর্ঘদিন সড়কটির অবস্থা বেহাল ছিল। পরে মেরামত করা হয়। এভাবে যদি বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দেয় তাহলে সড়কটির ভিত্তি নষ্ট হয়ে যাবে। এখন ওয়াসা কাজ করার জন্য রাস্তা কাটবে। নতুন রাস্তা কাটলে যেইসেই। সব চুদুরবুদুর কাজ কাম। লিকেজ হওয়ার পর ওয়াসা কতৃপক্ষকে জানিয়েছি। চট্টগ্রাম ওয়াসাকে জানানো হলেও কোন ব্যবস্থা নেয়নি তারা। খুব তাড়াতাড়ি ব্যবস্থা না নিলে বড়ো ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী এ.কে.এম ফজলুল্লাহ’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সিপ্লাসকে জানান, আমাদের পাইপ লাইনগুলো দীর্ঘদিনের পুরানো। আমরা পানির সাপ্লাই বাড়ানোর কাজ করছি। পানি সাপ্লাইয়ে প্রেসার বাড়িয়ে দিলে পাইপ ফেটে যাচ্ছে। আবার কমিয়ে দিলে গ্রাহক পানি পাচ্ছে না।

এ অবস্থায় আমরা নতুন পাইপ সংযোগ দিচ্ছি যার স্থায়িত্ব শতবছর। ঐ কাজটা কমপ্লিট হয়ে গেলে আর সমস্যা থাকবে না আশাকরি।

কেন রাস্তা সংস্কারের আগে পাইপ লাইনের কাজ করা হয়নি? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, সেবা সংস্থাগুলো কাজের অর্থ বরাদ্ধ এক সময়ে হয় না। আমরা যখন কাজ করি তখন সিটি কর্পোরেশনের বরাদ্ধ থাকে না। আবার যখন কর্পোরেশন কাজ করে তখন আমাদের বরাদ্ধ থাকে না। তাই সমঝোতা হয়ে ওঠে না।

পাইপ লিকেজ হওয়ার দুই সপ্তাহের মধ্যেও কেন সংস্কার করা হয়নি? এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, পাইপ লিকেজ হয়েছে দুই সপ্তাহ হয়েছে এই অভিযোগটি সঠিক নয়। মানুষ বাড়িয়ে বলছে। আমরা জানার সাথে সাথে ব্যবস্থা নিতে গেলেও কিছু ব্যাপার আছে রাস্তা যেহেতু সিটি কর্পোরেশনের তাদের অনুমতি নিতে হয়। রাস্তা কাটার আগে তাদের জানাতে হয়।

চাইলেই সাথে সাথে সমাধান করা যায় না। কাজগুলো সময় সাপেক্ষ। তারপরও বিষয়টি যেহেতু আমার নজরে এসেছে আমি চীফ ইঞ্জিনিয়ারের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নিচ্ছি।

উল্লেখ্য, চট্টগ্রাম বন্দরের পণ্য পরিবহনে পোর্ট কানেকটিং সড়ক খুবই গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিদিন এই সড়ক দিয়েই বন্দর থেকে পণ্য বা কন্টেইনারবাহী পরিবহন ঢাকাসহ দেশের নানাপ্রান্তে যাতায়াত করে।বন্দর ব্যবহারকারী কয়েক হাজার গাড়িসহ এই সড়ক দিয়ে চলাচল করে বন্দরনগরী চট্টগ্রামসহ আশেপাশের বিভিন্ন এলাকার অন্তত ১০ লক্ষাধিক মানুষ। ছয় লেন বিশিষ্ট পোর্ট কানেকটিং রোডের সংস্কার ও উন্নয়ন কাজের জন্য দীর্ঘদিন ধরে সড়কটির অবস্থা অত্যন্ত করুণ।