নিউজটি শেয়ার করুন

জুস কারখানায় এখনো জ্বলছে আগুন, নিহত বেড়ে ৫৫

জুস কারখানায় এখনো জ্বলছে আগুন

সিপ্লাস ডেস্ক: নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার কর্ণগোপ এলাকার জুস কারখানায় আগুন লাগার ২৪ ঘণ্টা পার হলেও ভেতরে এখনও এখনও আগুন জ্বলছে। ফায়ার সার্ভিস আগুন এখনও পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেনি।

বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) বিকালে সেজান জুস কারখানায় আগুন লাগে। আগুন নিয়ন্ত্রণে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও ডেমরা ফায়ার সার্ভিসের ১৮টি ইউনিট কাজ শুরু করে।

অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দুপুর পর্যন্ত ৫২ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আর হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে তিনজনের। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে ।এর মধ্যে অধিকাংশই পোড়া লাশ। চেনার উপায় নেই।

জুস কারখানায় এখনো জ্বলছে আগুন

এদিকে স্বজন হারানোর বেদনায় ভারী হয়ে উঠেছে কারখানা এলাকা। কারখানা থেকে লাশ বের করার সঙ্গে সঙ্গে পড়ে যায় কান্নার রোল। স্বজনদের আহাজারিতে পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। সকাল থেকে কারখানার সামনে জড়ো হন নিখোঁজদের স্বজনরা। লাশ বের করার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় কান্না ও আহাজারি। কেউ কাঁদছেন সন্তানকে হারিয়ে, কেউ আহাজারি করছেন মা-বাবাকে হারিয়ে। এ সময় মাটিতে গড়াগড়ি করেছেন কয়েকজন স্বজন।

স্বজনরা অভিযোগ করে জানান, কারখানা কর্তৃপক্ষের অবহেলায় এত শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। আগুন লাগার পরও কর্তৃপক্ষ গেটের তালা না খোলায় বের হতে পারেননি শ্রমিকরা। ছাদে এবং বিভিন্ন ফ্লোরে গিয়ে বাঁচার জন্য আশ্রয় নেন তারা। কিন্তু বের হতে না পারায় তাদের মৃত্যু হয়।

জেলা ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক আব্দুল আল আরিফিন বলেন, ৪৯ জনের লাশ উদ্ধার করেছি আমরা। ফায়ার সার্ভিসের চার গাড়িতে করে তাদের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে। তাদের লাশ চেনার উপায় নেই। কারখানা ভবনের ওপরের দুই ফ্লোরে এখনও আগুন জ্বলছে। তা নিয়ন্ত্রণে কাজ করে যাচ্ছেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।