নিউজটি শেয়ার করুন

চসিক নির্বাচনের উত্তাপ: ফেসবুক যুদ্ধ শুরু অইয়্যি লালখান বাজারদি

সিপ্লাস প্রতিবেদক: বেঁচে থাকতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীকে জিততে না দেওয়ার ঘোষনা দিয়েছেন লালখান বাজার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দিদারুল আলম মাসুম।

৫ জানুয়ারি ২০২১ মঙ্গলবার রাত ৯টা ২২ মিনিটে ফেসবুক স্টাটাসের মাধ্যমে নগরীর মধ্যাংশে অবস্থিত লালখান বাজার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক দিদারুল আলম মাসুম ফেসবুকে স্টাটাস দিয়ে এ ঘোষনা দেন।

নাম প্রকাশ না করলেও তিনি আওয়ামী লীগ মনোনীত কাউন্সিলর পদপ্রার্থীকে ইঙ্গিত করে ‘কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার স্বপ্ন বাস্তবায়ন’ হতে দিবে না বলে লিখেন।

এছাড়াও তিনি, আগামী ২৭ জানুয়ারি নির্বাচনে লাইসেন্স করা আর লাইসেন্স ছাড়া অস্ত্র ব্যবহার ও জবাব দেওয়ার কথাও লিখেন তার স্টাটাসে।

তার স্টাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো। “কোন অযোগ্য কিশোর গ্যাং লিডার ,বিএনপি,জামাতির আশ্রয়দাতা ,প্রিয় হারানো ছাত্রলীগ নেতা সুদীপ্তর পোষ্টার,সুদীপ্তর বাবা মা’কে ব্যবহারকারী লেবাসী ভাল মানুষ কাউন্সিলর হওয়ার স্বপ্ন বাস্তবায়ন অন্তত এই লালখান বাজারের মানুষ হতে দিবেনা।যদিও আমি এই পৃথিবীতে না থাকি…. ষড়যন্ত্র হচ্ছে আমার বিরুদ্ধে,যেভাবে আমাকে ৯০’তে হত্যা করতে চেয়েছিল স্বাধীনতা বিরোধীরা ঠিক একই কায়দায় চোরাগুপ্ত হামলা করার চিন্তায় আছে আমার সুশীল নেতা।না হয় যে কোন উপায় কারাগারে প্রেরন করা ছাড়া আর কোন চিন্তাই নাই সুশীল ব্যক্তির। সুদীপ্ত ব্যবহারের পাশাপাশি লালখান বাজারের মানুষ কি ভাবছে তা ভাবা উচিত,না হয় ২৭ তারিখ লাইসেন্স করা আর লাইসেন্স ছাড়া অস্ত্র ব্যবহারের জবাব আর ২ মিনিট ৫ মিনিটের ধমকের জবাব লালখানবাজার বাসী দিবে ইনশাল্লাহ । :একান্ত বাধ্য হলাম লিখতে,কখনো চাইনি অন্তত এই টাইপের লিখা লিখতে। লালখান বাজারের মানুষ সুখে থাকবে, সুখে থাকুক সারা বছর”।

এদিকে এই স্টাটাসকে কেন্দ্র করে চলছে আলোচনা সমালোচনা।অনুসারীদের মধ্যে ফেসবুকে দেয়া হচ্ছে পাল্টাপাল্টি স্টাটাস।চলছে নিজেদের মধ্যে কাদা ছোঁড়াছুড়ি।

দিদারুল আলম মাসুমের স্টাটাসের পর পাল্টা ফেসবুক স্টাটাস দিয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত কাউন্সিলর প্রার্থী আবুল হাসনাত মোহাম্মদ বেলাল।

তিনি আজ ৬ জানুয়ারি দুপুর ২টা ৩৮ মিনিটে একটি স্টাটাস দেন।

যাতে তিনি লিখেন “ভাইছা আন্নে আঁরে ল্যাং মাইত্তো বই রইছেন আঁই ভালা গরি জানি তয় মারনের আগে বুয়া হাড্ডিগিন চেক করি লইয়েন। বুয়া কালে হাড্ডি ভাইঙ্গলে আর জোঁয়া লয়না ভাইছা”।

উল্লেখ্য, দিদারুল আলম মাসুমের বাড়ী ফেনী হওয়ায় বেলাল ফেনীর ভাষায় এই স্টাটাস দিয়েছে বলে এলাকার অনেকেই ধারণা করছেন।

এদিকে অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে, এ বিষয়ে সাধারন ডায়েরি করার জন্য খুলশি থানায় আবেদন করেছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত কাউন্সিলর প্রার্থী আবুল হাসনাত মোহাম্মদ বেলাল। কিন্তু খুলশি থানা সেটি এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত গ্রহন করেনি।

সার্বিক পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে খুলশি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহিনুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সিপ্লাসকে জানান, ফেসবুক স্টাটাসের বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে।তাই ফেসবুকের সংঘাত যেন রাস্তায় না গড়ায় সে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে আমরা আজ বিকেল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত লালখান বাজার ওয়ার্ডের মতিঝর্না,ট্যাংকি পাহাড়,পোড়া কলোনী সহ বিভিন্ন সহিংসতা প্রবণ এলাকায় গিয়ে সবাইকে সতর্ক করে দিয়ে এসেছি এবং সার্বিক পরিস্থিতি নজরে রাখছি।

থানায় কেন জিডি গ্রহন করা হয়নি এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটা একটি রাজনৈতিক বিষয়, একজন স্থানীয় আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আরেকজন আওয়ামী লীগ মনোনীত কাউন্সিলর প্রার্থী। এটা যেহেতু দলীয় বিষয় তাই আমরা বিষয়টি অবজারভেশনে রাখছি। উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নজরেও আছে বিষয়টি।