নিউজটি শেয়ার করুন

চকরিয়া বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে খাদ্যের সন্ধানে বন্য হাতির পাল

মো: সেলিম উদ্দীন, কক্সবাজার প্রতিনিধি:  কক্সবাজারের চকরিয়ার ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে ঢুকে পড়েছে দশটি ক্ষুদার্ত বন্য হাতির একটি পাল। খাবারের সন্ধানে পার্কে হাতির পালটি ঢুকে পড়ায় পর্যটকদের বাড়তি নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে।

সরেজমিনে যাচাই করে রবিবার পর্যন্ত সাফারি পার্কের অভ্যন্তরে ও বাইরের আশপাশ এলাকার কোথাও ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।

সাফারি পার্কে কর্মরত লোকজন জানিয়েছে, প্রতিবছর শীত মৌসুমে পার্কের পূর্ব সীমান্তে দেয়ালবিহীন এলাকা দিয়ে হাতির পাল ঢুকে পড়ে। আবাসস্থল বিনষ্ট হয়ে খাদ্যসংকটের কারণে ক্ষুধার্ত এ হাতিগুলো ঢুকে পড়ছে পার্কের ভেতরে। পার্কের অভ্যন্তরে অনেক পর্যটক এসব বন্য হাতি সরাসরি দেখতে পেয়েছে বলে জানিয়েছে।

স্থানীয়দের মতে, আগেকার সময় সাফারি পার্কের কয়েক কিলোমিটার জুড়ে ছিল বন্য হাতির বিচরণ ক্ষেত্র। ফাঁসিয়াখালী ও উচিতারবিল এলাকায় ছিল বন্য হাতির অন্যতম আবাসস্থল। কিন্তু সেখানকার হাতির খাদ্যভাণ্ডার তছনছ করে তৈরি হয়েছে ডজনাধিক অবৈধ ইটভাটা। নির্মাণ করা হয়েছে বিভিন্ন স্থাপনা। যারফলে বন্য হাতির দল বারবার লোকালয়ে হানা দিচ্ছে। এমনকি খাবারের সন্ধানে সাফারি পার্কের ভেতরে ঢুকে পড়ছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ধ্বংস করা বন্য হাতির আবাসস্থল যদি আগের মতো গড়ে তোলা যায়, তাহলে এসব হাতি লোকালয়ে আর হানা দেবে না। মানুষের হাতেও মারা পড়বে না কোন বন্য হাতি।

পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম চৌধুরী জানান, গেল বছরের ডিসেম্বর মাসের দুই দফায় বন্য হাতিগুলো পার্কের ভেতরে ঢুকে পড়ে। কদিন পর্যন্ত সাফারি পার্কের পশুখাদ্যের বাগানে এসব বন্য হাতি অবস্থান করছিল। এইবারও পার্কে বাচ্চাসহ দশটি বন্য হাতি ঢুকে পড়েছে। আগত পর্যটকরা যাতে পার্কের ওই অংশে যেতে না পারে তারজন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিশেষ সকর্তাবস্থায় রাখা হয়েছে।