নিউজটি শেয়ার করুন

কর্ণফুলী ড্রাইডকের বিরুদ্ধে খাল ও রাস্তা দখলের অভিযোগে স্থানীয়দের মানববন্ধন নদী বাঁচলে আমরা বাঁচব

আনোয়ারা প্রতিনিধি: ১৯৯৬ সালে চট্টগ্রাম সিটি কপোরেশনের অধিনে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীর দক্ষিন পাড়ে আনোয়ারা-কর্ণফুলী উপজেলার শহরমুখী মানুষের অন্যতম যোগাযোগের মাধ্যম বদলপুরা ১৪ নম্বর ঘাট। দুই উপজেলার বৈরাগ ইউনিয়নের বদলপুরা ও কর্ণফুলী ইউনিয়নের শাহমীরপুর গ্রামের প্রায় কয়েক হাজার মানুষের প্রতিনিয়ত যাতায়াত এ ঘাট দিয়ে। সম্প্রতি স্থানীয় ভূমিদস্যু ও কর্ণফুলী ড্রাইডক নামে একটি জাহাজ নির্মাণ প্রতিষ্ঠান ঘাটের চলাচলের রাস্তা ও খাল দখল করে রেখেছে।

শুক্রবার (১৫ জানুয়ারী) বেলা সাড়ে ১১ টায় উপজেলার মেরিন একাডেমী বদুলাপুরা ১৪নং ঘাটের স্থানীয়দের ব্যানারে স্থানীয় ভূমিদস্যু ও কর্ণফুলী ড্রাইডকের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করেন স্থানীয়রা।

বক্তারা বলেন, কর্ণফুলী নদী বাঁচলে আমরা বাঁচব, ঘাট থাকলে এলাকাবাসীর অসহায়রা দুই মুঠোভাত খেতে পারবে। পেটে দুই মুঠো ভাতের জন্য আমরা সাগরকে বুকে ধরে বেঁচে আছি, আর ভূমিদস্যুরা ও কর্ণফুলী ড্রাইডকের অসাধু ব্যক্তি ইঞ্জিনিয়ার রশিদ আজ কর্ণফুলী নদীকে গিলে খাচ্ছে। আমাদেরকে এলাকা ছাড়া করতে ঘাটের রাস্তা ও খাল দখলে নেমেছে। এ শীতল ঝর্ণা খালটি বন্ধ হয়ে গেলে বদলপুরাবাসী বর্ষার সময়ে পানি বন্দি হয়ে পড়বে।

মানববন্ধন আয়োজক কমিটির আহবায়ক মো. নোয়াব আলীর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন বৈরাগ ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সোলাইমান, সাবেক বৈরাগ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. রফিক আহমদ মেম্বার, বর্তমান ইউপি সদস্য মো. মোরশেদ আলম, মোহাম্মদ সাদ্দাম হোসেন, মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন, মোহাম্মদ মাসুদ। এসময় বক্তারা ঘাটের রাস্তা ও খাল দখল মুক্ত করতে ভূমিদস্যু এবং কর্ণফুলী ড্রাইডকের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্থানীয় সাংসদ ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এমপির সু-দৃষ্টি কামনা করেন।