নিউজটি শেয়ার করুন

কর্ণফুলি উপজেলা বড়উঠানে “সৈয়দা হোসনে আরা-আলম খান ফাউন্ডেশন’র” উদ্যোগে বৃক্ষ পরিচর্যা কর্মসূচি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

বৃক্ষকে বাঁচানোর জন্য কর্ণফুলি উপজেলা, বড়উঠান মৌলভী বাড়ীতে “সৈয়দা হোসনে আরা-আলম খান ফাউন্ডেশন’র” উদ্যোগে ফাউন্ডেশন’র চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মোকাম্মেল হক খান’র সভাপতিত্বে “বৃক্ষ পরিচর্যা কর্মসূচি-২০১৯” ও আলোচনা সভা মঙ্গলবার( ৩১ ডিসেম্বর) অনুষ্ঠিত হয়।

প্রধান অতিথি হিসেবে কর্ণফুলি উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সমাজ সেবক মোঃ মেজবাহ উদ্দিন খান, বিশেষ অতিথি বড়উঠান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা কুমকুম দাশ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন- মাইমুনুল ইসলাম খান।

এছাড়া অন্যান্যদের মধ্য উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগ নেতা কায়ছারুজামান ফারুক, মোহাম্মদ গোলাম ফারুক, ফাউন্ডেশন’র সচিব মোঃ রেজাউল হক খান, ইউপি মেম্বার সাজ্জাদ হোসেন খান সুমন, বড়উঠান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক এ.কে.এম. মঈনুল হোসেন, জোহরা সুলতানা, মমতাজ বেগম, সৈয়দা তাহমিনা সুলতানা, মিতা পোদ্দার, ফারজান খানম, ওয়াইজ বিবি জামে মসজিদের খতিব হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ সরওয়ার আলম, সাইফুল্লা খান, মোঃ মফিজুর রহমান চৌধুরী, মিনহাজ উদ্দিন খান, মহানগর ছাত্রলীগের সদস্য হেমায়েতুল ইসলাম খান, আলিমুল্লা খান, মোঃ রাব্বি, মোঃ সোহেব, জুনায়েদ, এজাজ, মোঃ ময়নু, সোহেল, জিহান, রাকিব, মুজিব, অসিউর রহমান, করিম, মামুন, রাকিব, মোঃ সাইফু, মোঃ হিদু, মোঃ মোরশেদ, মাহবু, সাগর।

প্রধান অতিথি হিসেবে মোঃ মেজবাহ উদ্দিন খান বলেন- “পরিবেশের উন্নতি করি, লাগানো গাছের পরিচর্যা করি” এ স্লোগান ধারণ করে “বৃক্ষ পরিচর্যা কর্মসূচি” উদ্বোধন করেন। তিনি সরকারের বিভিন্ন উন্নিয়নমূলক কাজের কথা উল্লেখ করেন এবং জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব রোধে বৃক্ষরোপণের বিকল্প নেই।

বৃক্ষরোপণের পাশাপাশি “বৃক্ষ পরিচর্যা কর্মসূচি” এর মত মহান এ উদ্ব্যোগকে স্বাগত জানান এবং ফাউন্ডেশন’র চেয়ারম্যান ও সমাজ সেবক মোহাম্মদ মোকাম্মেল হক খান’র সামাজিক বিভিন্ন উন্নয়নমুলক কাজের ভূয়সী প্রশংসা করেন। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ বাস্তবায়নে এধরনে আয়োজন এক একটি মডেল হিসেবে কাজ করবে বলে মন্তব্য করেন।

সৈয়দা হোসনে আরা-আলম খান ফাউন্ডেশন’র চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মোকাম্মেল হক খান সভাপতির বক্তব্যে- একটি গাছ,একটি জীবন, গাছের পরিচর্যা করে গড়ে তুলি সুন্দর এ ভুবন। জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নেমে গেছে।

তিনি বলেন বর্ষাকালে বৃক্ষরোপণের কর্মসূচি দিবস যেমন পালন করে তেমনি শীতকালকে “বৃক্ষ পরিচর্যা কর্মসূচি দিবস” পালন করার জন্য সরকারের কাছে আহবান জানান। শীতকালে মাটি শুকনো থাকে, পানির অভাবে অনেক গাছ মরে যাচ্ছে। আগাছা পরিস্কার করে গোবর সার ও পানি দিলে গাছ সতেজ হয়ে উঠবে এভাবে ছাত্র-ছাত্রী ও এলাকার জনসাধারণকে উৎসাহিত করেন।

বড়উঠান সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা কুমকুম দাশ বলেন-বৃক্ষ পরিচর্যার  কথা অনেকে এ ভাবেনি। এটা একটা ভাল উদ্যোগ ও ব্যতিক্রমী। সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এর ধরনে উদ্যোগ গ্রহন করা উচিত বলে মন্তব্য করেন।

ফাউন্ডেশন’র চেয়ারম্যান ও সমাজ সেবক মোহাম্মদ মোকাম্মেল হক খান’র সামাজিক বিভিন্ন উন্নয়নমুলক কাজের প্রশংসা করেন। এর পূর্বেও এই স্কুলে ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন ও গাছের চারা বিতরণ করেছেন।