নিউজটি শেয়ার করুন

আনোয়ারায় প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডা. দেলোয়ারের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড়

আমি গোপালগঞ্জের লোক, খালেদা জিয়ার পিএস আমার আত্মীয়, আমার কিছুই হবেনা

আনোয়ারায় প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডা. দেলোয়ারের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড়

আনোয়ারা প্রতিনিধি: আনোয়ারা উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডা. দেলোয়ারের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড়।

অফিস টাইমে অফিসে না থেকে কলে চিকিৎসা দেয়া, গলাকাটা টাকা নেয়া, বিভিন্ন দিবসে প্রোগ্রাম না করে ভাউচার বানিয়ে টাকা আত্মসাৎ করা এবং টাকার বিনিময়ে সরকারি প্রণোদনা প্রদানসহ নানা অভিযোগ উঠেছে।

সম্প্রতি প্রাণীসম্পদ মেলা আয়োজন নিয়ে এসব অনিয়মের বিষয়টি আবারো সামনে আসে। অভিযোগ উঠেছে, প্রায় তিন লক্ষ টাকা বাজেটের এই প্রাণী সম্পদ মেলা ঠিকমত জমেনি। নির্ধারিত স্টলগুলোও পূরণ করতে পারেনি। তাছাড়া একদিনে মেলাটি বিকাল তিনটার আগেই শেষ করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন মেলায় আগত দর্শণার্থী এবং খামারিরা। ঠিকমত প্রচারের অভাবে মেলার বিষয়টি অনেকেই জানেনা বলে অভিযোগ করেছেন অনেকে।

বিভিন্ন উপজেলায় সংবাদ সম্মেলন করে মেলার বিষয়টি সাংবাদিকদের জানালেও আনোয়ারা উপজেলায় তেমন কোনো প্রচার চোখে পড়েনি। ফলে সরকারের লাখ লাখ টাকা ব্যায়ে দেশে এই প্রথমবারের মত ব্যতিক্রমধর্মী এই প্রাণীসম্পদ মেলা মূল যে উদ্দেশ্য সেটি পূরণ হয়নি বলে মত প্রকাশ করেছেন সচেতন মহল। আর এসব ব্যর্থতায় অভিযোগের তীর সেই ডা. দেলোয়ারের বিরুদ্ধে। তাঁর স্বেচ্ছাচারিতার কারণে এমনটি হয়েছে বলে প্রাণীসম্পদ সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে।

এসব অভিযোগের সত্যতা জানতে স্থানীয় সাংবাদিকরা ডা. দেলোয়ারের অফিসে গেলে তিনি রেগে গিয়ে দাম্ভিকতার সাথে বলেন, আমি আওয়ামীলীগ করি, আমার বাড়ি গোপালগঞ্জে,আমি মুক্তেযোদ্ধা পরিবারের লোক, কেউ আমাকে কিছু করতে পারবেনা, যারা আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছে তারা সবাই বিএনপির লোক। বিএনপি ক্ষমতায় আসলেও আমাকে কিছু করতে পারবেনা, খালদো জিয়ার পিএস শামসুল আলম আমার কাছের আত্মীয়। ২২ বছর ধরে আনোয়ারায় কাজ করছি। মাঝখানে দুইবছর চলে গিয়েছিলাম। সবাই আমাকে চাচ্ছে, এজন্য ভূমিমন্ত্রী জাবেদ সাহেব আমাকে আবার এনেছেন।

জানা যায়, ২০০৩ সালে ডাঃ দেলোয়ার হোসেন উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিসারের (ভারপ্রাপ্ত ) দায়িত্ব নেয়ার ২ বছর আগে আনোয়ারা প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ে যোগদান করেন। ২০১২ সালের অক্টোবরে তিনি বদলী হলেও ২০১৪ সালের নভেম্বরে আবারো আনোয়ারা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন।

কিন্তু উপজলোর অর্ধশত খামারিই তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় সেবা না পাওয়ার অভিযোগ তুলেন। দিনের অধিকাংশ সময় তার মোবাইল ফোনও বন্ধ পাওয়া যায় বলে জানা যায়।

এসব অভিযোগের কোন তোয়াক্কাই করেননা ডাঃ দেলোয়ার। অভিযোগের কথা বলতেই তিনি সাংবাদিকদের সাথে উত্তেজিত হয়ে বলেন, আপনারা যত পারেন লেখেন, আমার কিছুই হবেনা। মেলায় সাংবাদিকদের বলা আমার কাজ না। যারা নিজের ইচ্ছায় এসেছে আমরা তাদের জন্য খাওয়ার ব্যবস্থা করেছি। আকাশে মেঘ করার কারণে মেলা নির্দিষ্ট সময়ের আগে শেষ করা হয়েছে। আমি নিজের পকেট থেকে ১ লক্ষ বিশ হাজার টাকা দিয়ে ট্রেণিংয়ের জন্য ঘর তৈরি করেছি। সরকার কখন টাকা দিবে সেজন্য বসে থাকিনি।

চাতরী এলাকার খামারি নুরুল হুদা চৌধুরী বলেন, টাকা ছাড়া ডাঃ দেলোয়ারকে পাওয়া যায়না। তিনি কাউকে পরোয়া করনো। প্রাণী সম্পদ প্রদর্শনী মেলার কথা আমরা জানিনা।

আনোয়ারা দুগ্ধ খামারি এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক তানভীর হাসান বলেন, উপজেলার অনেক খামারির অভিযোগ, ডাঃ দেলোয়ারকে পাওয়া যায়না। অনেক সময় গরু মারা যাওয়ার উপক্রম হলেও তাকে পাওয়া যায়না।

জানতে চাইলে জেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা মোহাম্মদ রেয়াজুল হক বলেন, সরকারি কর্মকর্তাদের এভাবে দাম্ভিকতা নিয়ে কথা বলা উচিৎ না। আর ওনাকেতো মাঝেমধ্যে আমিও ফোনে পাইনা। এধরণের গাফিলতির বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে।