নিউজটি শেয়ার করুন

আনোয়ারায় এক সপ্তাহে ১৫টি মহিষ চুরির অভিযোগ

আনোয়ারা প্রতিনিধি : আনোয়ারা উপজেলায় গত এক সপ্তাহে ১৫টি মহিষ চুরির ঘটনা ঘটেছে। সপ্তাহের বিভিন্ন সময় বাড়ি ও বিভিন্ন বিল থেকে সংঘবদ্ধ চোরের দল এসব মহিষ চুরি করে নিয়ে যায়। এসব চুরির ঘটনায় ভুক্তভোগীরা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, চাতরী ইউনিয়নের রুদুরা গ্রামের মো. মিজানের দুটি মহিষ রাতে গোয়াল ঘরে রেখে ঘুমিয়ে যায়। পরদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখেন গোয়াল ঘরে মহিষগুলো নেই।

পরে খোঁজাখুঁজি শুরু করলে দুইজন মিনি ট্রাক চালক জানান, তাদের গাড়িতে করে ঐদিন রাতে দুটি মহিষ পটিয়ায় নিয়ে গিয়েছিল স্থানীয় দুই ব্যক্তি। ট্রাক চালকদের তথ্য মতে পটিয়া থেকে মহিষ দুটি উদ্বার করে মালিকরা। পরে রুদুরা গ্রামের মো. কাইছার ও মো. রিপন নামে দুইজনকে আসামী করে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন মহিষের মালিক মিজান।

এছাড়া কৈখাইন গ্রামের মো. আকবরও মহিষ চুরির একটি অভিযোগ দিয়েছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত শনিবার রাতে আনোয়ারা সদরের সা’দ মুছা ইন্ডান্ট্রির উত্তরের সিংহরা বিল থেকে আকবর এবং শাহ আলমের চারটি মহিষ চুরি হয়ে যায়। ঘটনার দিন জাহাঙ্গীর এবং সুমন নামের দুইজন লোক তাদের মহিষগুলো কেনার নাম করে দরদাম করছিল বলে অভিযোগে উল্লেখ করেছেন আকবর।

এদের একজনের বাড়ি পটিয়া উপজেলার কৈয়গ্রাম গ্রামে। অপরজন আনোয়ারার সরকার হাটে একজন গরুর ব্যবসায়ীর সাথে রাখালের কাজ করতেন। তাদের দুইজনের বিরুদ্ধে সন্দেহজনকভাবে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে সরকার হাটে রাখালের কাজ করা লোকটি পলাতক রয়েছেন বলে জানিয়েছেন আকবর।

এগুলো ছাড়াও ডুমুরিয়া-রুদুরা এলাকার মো. ইছহাকের দুইটি, মো. তৈয়বের দুইটিসহ আরো বেশ কয়েকজনের মহিষ চুরির ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। এখনো চুরি যাওয়া মহিষগুলো উদ্বার করা সম্ভব হয়নি।

আনোয়ারা থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি এস এম দিদারুল ইসলাম সিকদার জানান, মহিষ চুরির ঘটনার বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।