নিউজটি শেয়ার করুন

আগ্রাবাদে আবাসিক এলাকার নির্বাচনী ক্যাম্প ভেঙে দিল ভ্রাম্যমাণ আদালত

সিপ্লাস প্রতিবেদক: অনুমোদন ছাড়া নগরীর আবাসিক এলাকায় দুইটি নির্বাচনী ক্যাম্প স্থাপন করায় তা ভেঙে দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন এলাকায় আচরণ বিধি প্রতিপালনে ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষার্থে নির্বাচনী এলাকায় নিয়োজিত  এ ভ্রাম্যমাণ আদালত রোববার (১৭ জানুয়ারি) আগ্রাবাদ সিডিএ আবাসিক এলাকায় কাউন্সিলর প্রার্থীর নির্বাচনী ক্যাম্প ভেঙে দেয়।

 

এ সময় কাউন্সিলর প্রার্থীদের দলীয় পরিচয় সম্বলিত ব্যানার, পোস্টার, অবৈধ ব্যানার ইত্যাদি জব্দ করা হয়। কাউন্সিলর প্রার্থীদের দলীয় পরিচয় সম্বলিত অবশিষ্ট পোস্টার ,ব্যানারসমূহ নিজ দায়িত্বে অপসারণ করার জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুস সামাদ শিকদার  বলেন,  অনুমোদন ব্যতীত আবাসিক এলাকায় কাছাকাছি দুইটি নির্বাচনী ক্যাম্প স্থাপন করায় তা ভেঙে দেওয়া হয়েছে। কাউন্সিলর প্রার্থীদের দলীয় পরিচয় সম্বলিত ব্যানার, পোস্টার, অবৈধ ব্যানার ইত্যাদি জব্দ করা হয়েছে। অবশিষ্ট পোস্টার ,ব্যানারসমূহ নিজ দায়িত্বে অপসারণ করার জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

১২ নম্বর সরাইপাড়া, ২৩ নম্বর পাঠানটুলি, ২৪ নম্বর উত্তর আগ্রাবাদ ও সংরক্ষিত ৯ নম্বর মহিলা কাউন্সিলর ওয়ার্ডে নির্বাচনী আচরণ বিধি প্রতিপালনে ও আইন শৃংখলা রক্ষার্থে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলাম।

অভিযানে সরাইপাড়া ওয়ার্ডের হালিশহর রোডের পানিরকল, বউবাজার এলাকায় কাউন্সিলর প্রার্থী মো. সাইফুল আলম (টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীক) এর পক্ষে মোটর যানবাহনে পোস্টার লাগিয়ে মাইকযোগে নির্বাচনী প্রচার কার্যক্রম করছিলেন। মোটর‍ যানবাহনে পোস্টার লাগানোর দায়ে সিটি কর্পোরেশন (নির্বাচন আচরণ) বিধিমালা, ২০১৬ এর ৮(৮) ধারা ভঙ্গ করায় কাউন্সিলর প্রার্থীর কর্মী জালালউদ্দিন আকবরকে আর্থিক সামর্থ্য বিবেচনায় পাঁচশত ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এর পাশাপাশি অনুমোদনবিহীন সাইজের পিভিসি ব্যানার দিয়ে আলোকসজ্জা করার সময় একজন কাউন্সিলর প্রার্থীর কর্মীদের নিকট থেকে ব্যানার ও আলোকসজ্জার বাতি জব্দ করে বিনষ্ট করা হয়েছে। পাশাপাশি সকল ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীদের পোস্টারে দলীয় মনোনীত শব্দ যাতে না থাকে সেজন্যে সতর্ক করা হয় এবং যেগুলো টাঙানো আছে তা সরানোর নির্দেশনা দেয়া হয়।

২৮, ২৯ ও ৩৬ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ড এবং সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড-১১ এ নির্বাচনী আচরণবিধি প্রতিপালন নিশ্চিত করতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গালিব চৌধুরী।

অভিযান পরিচালনাকালে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী মো. সাজ্জাদ হোসেনের পক্ষের এক সমর্থককে সিটি কর্পোরেশন (নির্বাচন আচরণ) বিধিমালা ২০১৬ এর ৮(৫) ধারা লঙ্ঘন করে পোস্টারে কাউন্সিলর প্রার্থীর ছবির পাশাপাশি এক মেয়র প্রার্থীর ছবি ব্যবহারের দায়ে ৩১(১) ধারায় ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এসময় কয়েকজন প্রার্থীকে নির্বাচনী আচরণ বিধিমালা মেনে প্রচারণা চালাতে সতর্ক করা হয়।

এছাড়া ১৪, ১৫ ও ২১ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ড এবং সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড-৫ এ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এসএম আলমগীর, ৩৩,৩৪ ও ৩৫ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ডে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উমর ফারুক, ৭,৮ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ড ও সংরক্ষিত মহিলা ৩ নম্বর ওয়ার্ডে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ রানা, ১, ২ ও ৩ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ডে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আশরাফুল আলম, ২২, ৩০ ও ৩১ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ডে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুরাইয়া ইয়াসমিন ও ৯, ১০ ও ১৩ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ডে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রেজওয়ানা আফরিন অভিযান পরিচালনা করেন।