নিউজটি শেয়ার করুন

অন্যের স্ত্রীকে নিয়ে হোটেলে গিয়েছিলেন মামুনুল হক!

সিপ্লাস ডেস্ক: নারায়াণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের একটি রিসোর্টে যে নারীর সঙ্গে অবকাশ যাপন করতে গিয়েছিলেন হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক, তিনি তার দ্বিতীয় স্ত্রী নন।
নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের রয়েল রিসোর্টে অবরুদ্ধ হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে ছাড়িয়ে নিয়েছেন সংগঠনটির কর্মীরা।
ওই রিসোর্ট থেকে তাকে ছাড়িয়ে শনিবার (৩ এপ্রিল) সন্ধ্যায় স্থানীয় একটি মসজিদে নিয়ে যান হেফাজত নেতাকর্মীরা।
সেখান থেকে মামুনুল হক তার স্ত্রীকে ফোন করে বলেন, পুরো বিষয়টা আমি সামনে এসে তোমাকে বলবো। আমার সঙ্গে যে ছিল সে শহীদুল ইসলাম ভাইয়ের ওয়াইফ। প্রতি উত্তরে মামুনুল হকের স্ত্রী বলেন, বাসায় আসেন তারপর কথা বলবো। এমনকি মামুনুলও বলেন, তুমি সবাইকে বলবে, বিষয়টা তুমি জান।
মামুনুল হকের কথিত দ্বিতীয় স্ত্রী
এর আগে বিকেলে রয়েল রিসোর্টে মামুনুল হককে স্থানীয় কয়েকজন অবরুদ্ধ করে রাখেন।
এ ঘটনায় ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে বলতে শোনা যায়, মামুনুল এক নারীসহ আটক হয়েছেন। যদিও ওই নারীকে নিজের স্ত্রী বলে দাবি করেছেন তিনি।
এ সময় পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসনের লোকজনও সেখানে উপস্থিত হন। এ ঘটনা ফেসবুকে লাইভ করেন কয়েকজন ব্যক্তি। ওই লাইভ দেখে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। সন্ধ্যার পর স্থানীয় লোকজন ও মাদরাসার শত শত ছাত্র ওই রিসোর্ট গিয়ে মামুনুল হককে নিয়ে আসেন। বের হয়ে এসে মামুনুল হক জনতার উদ্দেশে বক্তব্য দেন।
তিনি বলেন, ‘কিছু বাইরের লোক খারাপ আচরণ করেছে। আমি আমার দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে এখানে ঘুরতে এসেছিলাম। আপনারা শান্ত থাকুন।’

 

মামুনুলের ফোনালাপ:

মামুনুল হকের স্ত্রী: আসসালামু আলাইকুম

মামুনুল হক: ওলাইকুম সালাম ওয়া রহমতুল্লাহ। পুরা বিষয়টা আমি তোমাকে সামনে আইসা বলবো। ওই মহিলা যে ছিল সাথে সে হইলো আমগো শহীদুল ইসলাম ভাইয়ের ওয়াইফ। বুঝছো? ওইটা নিয়া এমন একটা মানে অবস্থা এরকম তৈরি হইয়া গেছে যে এই কথা বললে তারা ওখানে মানে ই কইরা ফেলছিল আমাকে।

মামুনুল হকের স্ত্রী: আচ্ছা, বাসায় আসেন, তারপর যা বলার তারপর বইলেন।

মামুনুল হক: বলুম তো। তুমি বিষয়টা মানে অন্যান্য কথা বলতে হইবো, পরিস্থিতিটা এমন হইয়া গেছে। এখন এই জন্য তুমি আবার মাঝখান দিয়া অন্য কিছু মনে কইরো না। তোমাকে কেউ জিজ্ঞেস করলে তুমি বইলো হ্যাঁ আমি সব জানি। এইরকম কিছু একটা বইলো।

মামুনুল হকের স্ত্রী: ঠিক আছে।

মামুনুল হক: আচ্ছা। আসসালামু আলাইকুম।