cplusbd

নিউজটি শেয়ার করুন

ফটিকছড়িতে বন্যার পানি কমলেও বেড়েছে মানুষের দুর্ভোগ

1st Image

ফটিকছড়ি প্রতিনিধি (২০১৯-০৭-১৫ ০৮:৫২:২০)

ফটিকছড়ি উপজেলায় বন্যার সার্বিক পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। তবে এখনো বহু মানুষ পানিবন্দি রয়েছে। অতিবৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট বন্যায় ফটিকছড়ি উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভার প্রায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি ছিলেন। সোমবার থেকে বাড়িঘর ও রাস্তাঘাট থেকে পানি কিছুটা নামতে শুরু করেছে। এতে মানুষের দুর্ভোগ বাড়ছে। পাশাপাশি বন্যার্তদের মধ্যে বিশুদ্ধ পানির অভাবসহ বিভিন্ন ধরনের পানিবাহিত রোগব্যাধিও দেখা দিয়েছ। এসব এলাকার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্থরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খোলা থাকলেও শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ছিল একেবারেই কম। এদিকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে বন্যাদূর্গত এলাকায় ত্রাণসামগ্রী দেওয়া হলেও প্রয়োজনের তুলনায় তা অপ্রতুল বলে দাবী করছে স্থানীয়রা। শাহনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন বলেন, গত ৩/৪দিন বিদ্যালয় খোলা থাকলেও বন্যার কারনে পাঠদান কার্যক্রম চলেনি। তবে সোমবার পাঠদান চললেও শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি তেমন ছিলন। লেলাং ইউপি চেয়ারম্যান সরোয়ার উদ্দিন শাহীন বলেন, বন্যায় আমার এলাকার প্রায় ৬/৭হাজার মানুষ পানিবন্দি ছিলেন। বন্যায় এলাকার রাস্তাঘাট ও খালের বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আন্তত ৭০ লক্ষ টাকা। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সায়েদুল আরেফিন বলেন,বন্যায় ফটিকছড়ির লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্ধি ছিল। পানি এখন কিছুটা কমতে শুরু করেছে। তবে এখনো অনেক মানুষ পানিবন্ধি রয়েছে। বন্যাদূর্গত এলাকায় ৫০ মেট্রিকটন চাল ও ৫০০ প্যাকেট শুকনা খাবার বিতরণ করা হয়েছে এবং হচ্ছে। এছাড়া আরো কিছু ত্রাণ বরাদ্দেন জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।