নিউজটি শেয়ার করুন

স্বামী বাড়ির আঙ্গিনায় মাটির নিচে পুঁতে রাখে নিখোঁজ স্ত্রীর লাশ

বিজ্ঞাপন

মহেশখালী প্রতিনিধি: কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া ইউনিয়ন এর উত্তর নলবিলায় গত ৬ দিন ধরে নিখোঁজ গৃহবধূ আফরোজা বেগম এর লাশ স্বামীর বাড়ির আঙ্গিনায় মাটির নিচে পুঁতে রাখা অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

 ১৭ অক্টোবর রাত ১১ টায় পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে।

জানা যায়,নিহত আফরোজা উপজেলার হোয়ানক ইউনিয়নের মোঃ ইসহাক এর মেয়ে। বিগত এক বছর পূর্বে উত্তর নলবিলা গ্রামের হাসান বশিরের পুত্র বদরখালী কলেজের খণ্ডকালীন প্রভাষক রাকিব হাসান বাপ্পির সাথে আফরোজার বিয়ে হয়। এইটি উভয়ের তৃতীয় ও চতুর্থ বিয়ে। তাদের মধ্যে পারিবারিক কলহের জের ধরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা পর্যন্ত গড়ায়। অবশেষে গত কিছুদিন পূর্বে মামলায় আপোষের সূত্র ধরে স্বামী বাপ্পি স্ত্রী আফরোজাকে তার বাড়িতে নিয়ে যায়। গত ১২ অক্টোবর স্ত্রী আফরোজা নিখোঁজ হয় বলে শাশুড়ি রোকেয়া হাসান আফরোজার বাবার বাড়িতে খবর দেয়। সেই থেকে আফরোজা নিখোঁজ ছিল। অপরদিকে স্বামী রাকিব হাসান বাপ্পী ও পলাতক হয়ে যায়।

এলাকাবাসীরা জানান, গত ১১ অক্টোবর রাতে বাপ্পী তার স্ত্রীকে ব্যাপক মারধর করে।কিন্তু সকালে ঘরে তালা দিয়ে বাপ্পী পালিয়ে যায়। সর্বশষ গত ১৭ অক্টোবর সারাদিন থানার একদল পুলিশ কালারমারছড়ার উত্তর নলবিলার পাহাড়ে অভিযান চালায়। পরে পুলিশ চলে যাওয়ার পর লাশ সরিয়ে ফেলার জন্য রাতে প্রস্তুতি নেয়ার সময় মহেশখালী থানার পুলিশ খবর পেয়ে বাপ্পীর বাড়ীর আঙ্গিনার মাটি খুঁড়ে আফরোজার লাশ উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। লাশ দেখে এলাকায় মানুষ ভিড় জমান।

মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল হাই জানিয়েছেন, স্বামী রাকিব হাসান বাপ্পির বাড়ির আঙ্গিনায় মাটির নিচে পুঁতে রাখা অবস্থা থেকে আফরোজার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।