নিউজটি শেয়ার করুন

পহেলা আগষ্ট থেকে বন্ধ হয়ে যাবে সীতাকুণ্ডের ৫টি রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল,দুশ্চিন্তায় আর দিশেহারা হাজারো শ্রমিক

কামরুল ইসলাম দুলু, সীতাকুণ্ড:বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের (বিজেএমসি) অধীন দেশের ২৫ টি পাটকল বন্ধের পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। সেক্ষেত্রে পরবর্তী সময়ে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারির (পিপিপি) ভিত্তিতে পুনরায় চালু করা হবে পাটকলগুলো এমনটিই জানিয়েছে বিজেএমসি এ।

ক্রমাগত লোকসানের বোঝা থেকে মুক্ত হতে এ পরিকল্পনা করছে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।

এদিকে সরকারী এমন সিদ্ধান্তের পর সীতাকুণ্ডের ৫ টি রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিক-কর্মমচারীদের মধ্যে দেখা দিয়েছে চরম অসন্তুষ। একদিকে মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে চলছে চরম দূর্ভোগ আরেকদিকে মিল বন্ধের ফলে বেকার হয়ে যাবে ৫ জুট মিলের কয়েক হাজার শ্রমিক-কর্মচারী।

সীতাকুণ্ডের ৫ টি রাষ্ট্রায়ত্ত কারখানাগুলোর মধ্যে গালফ্রা হাবিব লিমিটেডে কর্মকর্তা-কর্মচারী-৬৮জন, শ্রমিক- ২৬৮জন। গুল আহম্মদ জুট মিলে শ্রমিক-কর্মচারী- ১০১জন,শ্রমিক-১৩৯৭জন। হাফিজ জুট মিলস এ কর্মকর্তা-কর্মচারী- ১১১জন,শ্রমিক-২০৯২জন। এম.এম জুট ‍মিলে কর্মকর্তা-কর্মচারী- ৪৩জন, শ্রমিক ১৫৬ জন এবং আর.আর জুট মিলে কর্মকর্তা-কর্মচারী- ৫৫জন, শ্রমিক- ৪৭৪জন।

মিল বন্ধ হয়ে যাওয়ার খবরে শ্রমিকদের চোখে মুখে অন্ধকার দেখতে পাচ্ছে। একদিকে মহামারী করোনাভাইরাস অন্যদিকে অজানা আতঙ্ক এসব দুশ্চিন্তায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে পাটকল শ্রমিকরা এদিকে কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ানের সাথে সকল পাটকলের শ্রমিক নেতাদের বৈঠক সোমবার অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় শ্রমিক লীগ নেতা এবং হাফিজজুট মিলস সিবিএ সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল হক।

তিনি জানান, বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে আগামী পহেলা জুলাই দরখাস্ত লাগানো হবে ৬০ দিনের। এর মধ্যে গোল্ডেন হ্যান্ডশেকের মাধ্যমে তিন চেকে শ্রমিকদের সকল পাওনা পরিশোধ করা হবে। অর্থাৎ আগামী আগষ্টের প্রথম সাপ্তাহ থেকে দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত ২৫ টি পাটকল বন্ধ হয়ে যাবে।

এব্যাপারে হাফিজ জুট মিলস শ্রমিক ফেডারেশন সাধারন সম্পাদক দিদারুল আলম চৌধুরী বলেন, সরকারের মিল বন্ধের সিদ্ধান্ত আমরা মন থেকে মেনে নিতে পারছিনা। এই পাটকল বন্ধ হয়ে গেলে হাজার হাজার মানুষ বেকার হয়ে পড়বে। সরকার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিতে বলছিল, প্রত্যেক ঘরে ঘরে একজন করে চাকরী দিবে অথচ আজ তার উল্টো করছে। সরকার যে বলেছে পিপিপর মাধ্যমে মিলগুলো চালাবে একথা আমরা বিশ্বাস করিনা।

তিনি বলেন, জুটমিলগুলো বন্ধ না করে বরং কিভাবে চালালে লাভ হবে সেই চেষ্টা করা উচিত সরকারের। শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক রবিউল হক বলেন, মিল বন্ধের ফলে দেশে প্রায় এক কোটি মানুষ বেকার হয়ে পড়বে। একদিকে করোনা ভাইরাসের মহামারী অন্যদিকে মিল বন্ধ করার এই সিদ্ধান্ত আত্নঘাতি। সরকার লাখ লাখ রোহিঙ্গাকে বসিয়ে বসিয়ে যদি খাওয়াতে পারে আমরা শ্রমিকরা কাজ করে কেন খেতে পারবো না। আমরা কি রোহিঙ্গাদের থেকেও খারাপ হয়ে গেছি ? আমাদের সকল দেনা-পাওনা মিল বন্ধ হওয়ার আগেই বুঝিয়ে দিক সরকার।

শ্রমিক নেতা আবু তাহের বলেন, এই সরকার এতদিন বলে আসছে শ্রমিক বান্ধব সরকার। তার নির্বাচনের আগে বলেছিল নতুন নতুন কারখানা গড়ে তুলবে, ঘরে ঘরে চাকরী দেবে অথচ রাষ্ট্রায়ত্ত সব পাটকল বন্ধ করে দিয়ে লাখ লাখ মানুষকে বেকার করে দিচ্ছে। কার ষড়যন্ত্রে দেশের সোনালী আঁশ পাট কলগুলো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। সরকারের উচিৎ মিলগুলো বন্ধ না করে দূর্নিতী বন্ধ করে যেভাবে মিলগুলোকে লাভবান করা যায় সেই ব্যবস্থা করা।

এদিকে উপজেলার ৫টি রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোতে স্রমিক অসন্তুষ দেখা দেওয়ায় ব্যাপাক নিরাপাত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। যেকোন ধরণের অনাকাঙ্খিত ঘটনা এড়াতে মোতায়েন করা হয়েছে বিপুল সংখ্যক পুলিশ।

এব্যাপারে সীতাকুণ্ড মডেল থানার ওসি ফিরোজ হোসেন মোল্লা বলেন, যাতে আইনশৃংখলার অবনতি না ঘটে তারজন্যে আমরা প্রস্তুুতি গ্রহণ করেছি। ৫ টি মিলে নিরাপাত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। আমরাও চাই সরকার এবং শ্রমিকদের মধ্যে সুন্দর একটা সমঝোতা হোক, এবং কোন ধরণের যাতে বিশৃংখলা না ঘটে।