কক্সবাজারে কুতুবদিয়ার ইউপি চেয়ারম্যান আটক

বিশেষ প্রতিনিধি, কক্সবাজার
  • Update Time : রবিবার, ১ ডিসেম্বর, ২০১৯, ০১:৫৯ am
  • ১৬৪৮ বার পড়া হয়েছে

কুতুবদিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দিদারুল ফেরদৌসের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে দায়ের করা একটি অভিযোগ দুদক তদন্তকালে সাক্ষীর ওপর হামলার অভিযোগে কুতুবদিয়া উপজেলার বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আ.ন.ম শহীদ উদ্দিন ছোটনকে আটক করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

শনিবার (৩০ নভেম্বর) রাত ১১টার দিকে কক্সবাজার শহর থেকে তাকে আটক করা হয়।

এর আগে উক্ত ঘটনার জড়িত থাকার অভিযোগে বেলাল নামের আরো এক যুবককে আটক করে পুলিশ । আটক ইউপি চেয়ারম্যানকে কক্সবাজার সদর মডেল থানার পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম দুদকের উপ-সহকারি পরিচালক জাফর সাদেক শিবলী সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

চট্টগ্রাম দুদকের উপ-সহকারি পরিচালক শরিফ উদ্দিন বলেন, ‘কুতুবদিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ দিদারুল ফেরদৌস, এসআই জয়নাল আবেদীন, এএসআই স্বজল দাশ’র বিরুদ্ধে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ, দুর্নীতি, নিরহ লোকদের মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি ও দখলদারের পক্ষ নেয়াসহ নানা অভিযোগে হাইকোর্টে একটি রিট পিটিশন দায়ের করেন কুতুবদিয়ার মনোয়ার ইসলাম মুকুল নামের এক ব্যক্তি। ওই অভিযোগের প্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম দুর্নীতি দমন কমিশনকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। ওই নির্দেশের ভিত্তিতে চট্টগ্রাম দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর উপ-সহকারি পরিচালক শরীফ উদ্দিনের নেতৃত্বে ৪ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল কুতুবদিয়া যান। এসময় তদন্তের এক পর্যায়ে দায়ের করা পিটিশনের সাক্ষীদের সদর উপজেলায় আসার জন্য অনুরোধ করেন দুদকের প্রতিনিধিদল। এ খবর পেয়ে বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আ.ন.ম শহীদ উদ্দিন ছোটনের নেতৃত্বে ১০/১২ জনের একটি দল হামলা চালিয়ে সাক্ষীদের বেধড়ক মারধর করে অপহরণের চেষ্টা চালায়। পরে দুদকের হস্তক্ষেপে আহতদের রক্ষাক্ত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। একইভাবে দুদকের নির্দেশে কুতুবদিয়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ ব্যাপারে মামলা নেয়ার জন্য কুতুবদিয়া থানাকে নির্দেশ দেন দুদক প্রতিনিধিদল।

অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান আ.ন.ম শহীদ উদ্দিন ছোটন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, ‘হাইকোর্টে রীটকারি মনোয়ারুল ইসলাম মুকুল একজন মামলাবাজ। তার বিরুদ্ধে অস্ত্র, চাঁদা ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগ ৪/৫টি মামলা রয়েছে। তিনি আমার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছেন। আমি ও আমার লোকজন কাউকে মারধর করেননি।

তিনি বলেন, মুকুলের লোকজনই আমার ওপর হামলা চালিয়েছে। আমার ডানহাত ভেঙে গেছে। শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাত করেছে।

জানতে চাইলে কুতুবদিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দিদারুল ফেরদৌস বলেন, ‘দুদক আমার বিরুদ্ধে তদন্তকালে তাদের যথেষ্ট সহযোগিতা করি। বিকালে জানতে পারি বড়ঘোপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদ উদ্দিন ছোটন ও হাইকোর্টে রীটকারি মনোয়ারুল ইসলাম মুকুলের লোকজনের মধ্যে মারামারি হয়। এতে উভয় পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হয়। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে’।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 cplusbd.net