নিউজটি শেয়ার করুন

হেফাজতের নতুন আমীর মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরীর জীবনী

হেফাজতের নতুন আমীর মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরীর জীবনী

আনোয়ার হোসেন ফরিদ, ফটিকছড়ি: হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের নবনিযুক্ত আমীর আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ১৯৩৪ সনের ১৫ ফেব্রুয়ারী চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার অজপাড়া গাঁ দৌলতপুরস্থ বাবুনগর গ্রামে সম্ভ্রান্ত আলেম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।

তাঁর পিতা আল্লামা শাহ মুহাম্মদ হারুন বাবুনগরী (রঃ) ও মাতা উম্মে ছালমা।

দুই ভাই; তিন বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়।

শৈশবে তাঁর বাবা আল্লামা হারুন বাবুনগরী কর্তৃক ১৯২৪ সনে প্রতিষ্ঠিত আল-জামিয়া আজিজুল উলুম বাবুনগর মাদ্রাসায় প্রাথমিক পাঠ সম্পন্ন করেন মুহিব্বুল্লাহ। সেখানে ৮ বছর (চাহরম শ্রেণী) পড়ে ১৯৪৯ সনে তিনি হাটহাজারী মাদ্রাসায় ভর্তি হন। সেখানে ২ বছর (ছুয়াম শ্রেণী পর্যন্ত) পড়ে ১৯৫২ সনে পাড়ি জমান ভারতের বিখ্যাত দ্বীনি শিক্ষাঙ্গন ‘দারুল উলুম দেওবন্দ’ মাদ্রাসায়। সেখানে গিয়ে তিনি আবারো চুয়াম (৯ম শ্রেণী), দুয়াম (১০ম শ্রেণী), উলা ও দাওরায়ে হাদীস (মাস্টার্স) সম্পন্ন করেন। পরে আরো এক বছর হাদীস শাস্ত্রে উচ্চতর শিক্ষা গ্রহণ করেন।

ওই সময় তাঁর ওস্তাদ ছিলেন ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের পুরোধা আল্লামা হোসাইন আহমদ মাদানী (রঃ),আল্লামা বলিয়ভী (রঃ) ও শায়খুল হাদীস আল্লামা সৈয়দ ফখরুদ্দীন (রঃ)।

ওখানে যাওয়ার সাড়ে ৩ বছরের মাথায় আল্লামা হোসাইন আহমদ মাদানী ইন্তিকাল করেন এবং সেই ঐতিহাসিক জানাজায় তিনি শরীক ছিলেন।

১৯৬০ সনে তিনি দেওবন্দ থেকে ফেরৎ এসে পিতার প্রতিষ্ঠিত বাবুনগর মাদ্রাসায় শিক্ষকতায় মনোনিবেশ করেন। ১৯৮৬ সনে তাঁর পিতা আল্লামা শাহ মুহাম্মদ হারুন বাবুনগরী ইন্তিকাল করলে তিনি বাবুনগর মাদ্রাসার মুহতামিম নিযুক্ত হন; সে থেকে আজ অবদি তিনি মুহতামিম হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ১৯৬০ সনে দেওবন্দ থেকে ফিরেই পিতার নির্দেশে ফটিকছড়ির ধর্মপুর আদু বাপের বাড়ী থেকে বিয়ে করেন। তাঁর স্ত্রীর নাম মরিয়ম বেগম; তিনি গত ৪ আগস্ট ইন্তিকাল করেছেন। তাঁর ৩ পুত্র মাওলানা মুহাম্মদ আইয়ুব বাবুনগরী, মুফতি মুহাম্মদ মহিউদ্দীন বাবুনগরী ও মাওলানা মুহাম্মদ মঈনুদ্দীন বাবুনগরী এবং ৮ কন্যা সন্তান; যারা সকলে বিবাহিত।

তিনি হেফাজতের প্রতিষ্ঠাকালীন সিনিয়র নায়েবে আমীর ছিলেন; কওমী সনদের সরকারী স্বীকৃতি নেয়া বিষয়ে বিরোধের জের ধরে তিনি হেফাজত, হায়াতুল উলইয়া ও বেফাকুল মাদারিস এবং ইসলামী ঐক্যজোটসহ সব সংগঠন থেকে পদত্যাগ করেন।

হেফাজত আমীর আল্লামা আহমদ শফির ইন্তিকালের পর তিনি হেফাজতে ফেরেন এবং সংগঠনটির আমীর হবার সম্ভাবনা থাকলেও আপন বড় ভাগিনা আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর আত্মত্যাগ মূল্যায়ন দিতে তিনি তা হতে রাজী হননি। তবে ওনাকে হেফাজতের প্রধান উপদেষ্টা করা হয়।

১৯ আগস্ট ভাগিনা হেফাজত আমীর আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর আকস্মিক মৃত্যুতে আমীর পদটি শুন্য হলে জুনায়েদ বাবুনগরীর জানাজায় আল্লামা শাহ মুহাম্মদ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরীকে হেফাজতের নতুন আমীর ঘোষণা করা হয়।

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments