নিউজটি শেয়ার করুন

সাংবাদিক ও ইউপি চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকিদাতা সীতাকুণ্ডের প্রতারক খোকনের ৬ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

ছবিঃ প্রতারক খোকন চন্দ্র

সীতাকুন্ড প্রতিনিধি: সীতাকুণ্ড প্রেসক্লাবের সভাপতি সৌমিত্র চক্রবর্তী ও দুই ইউপি চেয়ারম্যানকে হত্যার হুমকিদাতা বহু প্রতারণার ঘটনায় অভিযুক্ত খোকন চন্দ্র নাথ (৫০) কে দুটি মামলায় ৩ দিন করে মোট ৬ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন বিজ্ঞ আদালত। বুধবার চট্টগ্রামের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট কৌশিক খন্দকার ভার্চুয়াল শুনানী শেষে এই আদেশ দেন। অভিযুক্ত খোকন সীতাকু-ের কুমিরা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড মছজিদ্দা গ্রামের সতীশ মহাজন বাড়ির মৃত পরিমল চন্দ্রনাথের ছেলে। গত ১০ আগষ্ট মঙ্গলবার রাত পৌনে ১২টায় সীতাকুণ্ড প্রেসক্লাব সভাপতি দৈনিক কালের কন্ঠ প্রতিনিধি সৌমিত্র চক্রবর্তীর হোয়াটসআপ নম্বরে ফোন করে প্রতারক খোকন নিজের পরিচয় গোপন রেখে বলেন তার দপ্তরে সাংবাদিক সৌমিত্র চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে শতাধিক অভিযোগ আছে। ১০ হাজার টাকা বিকাশে পাঠালে এই সব অভিযোগ ফেলে দেওয়া হবে। এসব বিষয়ে তাকে চ্যালেঞ্জ করলে খোকন এরকম সাংবাদিককে মেরে ফেলতে তার সময় লাগবে না বলে হুমকি দেয়! এ বিষয়ে সাংবাদিক সৌমিত্র থানায় মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনার পর খোকনের প্রতারণার বিষয়ে সাংবাদিকদের কাছে তথ্য দেওয়ায় সে বাঁশবাড়িয়ার ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শওকত আলী জাহাঙ্গীর ও কুমিরার চেয়ারম্যান মোর্শেদুল আলম চৌধুরীকেও হত্যার হুমকি দেয়। এছাড়া তার প্রতারণার শিকার বাড়বকুণ্ডের ইউসুফ নামক এক ব্যক্তিকে  চাকুরি দেবার নাম করে আরো ৭০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেওয়ায় ও পরে তার বাড়িতে ঢুকে টাকা, মোবাইলসহ প্রায় এক লক্ষ টাকার মালামাল লুট করায়  তিনিও থানায় মামলা দায়ের করেন। এছাড়া হত্যার হুমকি দেওয়ায় দুই ইউপি চেয়ারম্যানও জিডি করেন এবং মনজু নামক এক ব্যক্তি প্রতারণার অভিযোগে জিডি করেন। এসব ঘটনায় ধারাবাহিকভাবে জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর খোকনকে র‌্যাব-পুলিশ খুঁজতে শুরু করার মধ্যেই সে ১৫ আগষ্ট গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে গিয়ে একটি ভূমিদস্যু চক্রের সাতে জমি দখলের চেষ্টার সময় জনতা তাকে গণপিটুনি দিলে খবর গোবিন্দগঞ্জ থানার পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। পরে বুধবার তাকে চট্টগ্রামের আদালতে তোলা হলে সীতাকুণ্ড থানায় দায়েরকৃত দুটি মামলায় তার ৫ দিন করে রিমান্ডের আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী অফিসারবৃন্দ। শুনানী শেষে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট কোশিক খন্দকার দুটি মামলাতেই ৩ দিন করে মোট ৬ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। প্রেসক্লাবের সভাপতির পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন এডভোকেট মোঃ জাহেদ। আরো উপস্থিত ছিলেন এড. নাছির, এড. সরোয়ার আলম ও এড. নুর উদ্দিন।

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments