নিউজটি শেয়ার করুন

মিতু হত্যা : বাবুলের মামলার নথিপত্র থাকবে বিচারিক হেফাজতে

সিপ্লাস প্রতিবেদক: স্ত্রী মাহমুদা আক্তার মিতু হত্যাকাণ্ডের পর যে মামলাটি করেছিলেন বাবুল আক্তার, অকার্যকর সেই মামলাটির নথিপত্র বিচার বিভাগের হেফাজতে থাকবে।

স্ত্রী হত্যাকাণ্ডের বাদী থেকে আসামি বনে যাওয়া সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা বাবুল নিজেই পুলিশের হেফাজত থেকে ওই নথিপত্র বিচার বিভাগের হেফাজতে নিতে আবেদন করেছিলেন।

তাতে সাড়া দিয়ে সোমবার চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম মেহনাজ রহমান আদেশ দিয়েছেন বলে বাবুল আক্তারের আইনজীবী শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী জানান।

তিনি বলেন, “মামলার ডকেট (নথিপত্র) জুডিশিয়াল হেফাজতে একজন ম্যাজিস্ট্রেটের আওতায় থাকবে। চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট যাকে কাস্টডিয়ান (ম্যাজিস্ট্রেট) নির্ধারণ করবেন, তার অধীনে ট্রাঙ্কে সিলগালা করা অবস্থায় এগুলো রাখা হবে।”

২০১৬ সালের ৫ জুন চট্টগ্রাম নগরীর জিইসি মোড়ে ছেলেকে স্কুল বাসে তুলে দিতে যাওয়ার সময় মিতুকে প্রকাশ্যে গুলি চালিয়ে ও কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

পুলিশ সুপার বাবুল আক্তার তখন চট্টগ্রাম থেকে বদলি হয়ে ঢাকায় ছিলেন। স্ত্রী হত্যাকাণ্ডের পর চট্টগ্রাম ফিরে তিনি পাঁচলাইশ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

এরপর নানা নাটকীয় ঘটনায় এক পর্যায়ে পুলিশের চাকরি ছাড়েন বাবুল। তার পাঁচ বছর পর তদন্ত করে বাবুলকেই স্ত্রী হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনাকারী হিসেবে চিহ্নিত করে পিবিআই।

গত ১২ মে বাবুলকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার আগে মিতুর বাবা মোশারফ হোসেন মেয়েজামাইকে আসামি করে মামলা করেন।

 

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments