নিউজটি শেয়ার করুন

বাল্য প্রেমের বিড়ম্বনা: প্রেমিক কারাগারে, প্রেমিকা মায়ের জিম্মায়

সিপ্লাস প্রতিবেদক:  নগরীর হালিশহর বড়পুল এলাকায় তিশা (১৪) ছদ্ম নামে এক কিশোরীর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে সাইফুল ইসলাম অভি (২৪) নামে এক যুবকের সাথে।

মামলা সুত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক অভি ও তিশার (ছদ্মনাম)। তাদের সম্পর্কের বিষয়টি দুই পরিবারেই জানাজানি হয়ে যায়। অভির পরিবার বিয়েতে রাজি হলেও তিশার পরিবার কোনোভাবেই অভির সঙ্গে তাদের মেয়ের বিয়ে দেবে না। কারণ তাদের মেয়ে এখনও অপ্রাপ্ত বয়স্ক এ অজুহাতে নারাজ তারা। এ সুবাধে অভি ও তিশা (ছদ্মনাম) দুজনেই সিদ্ধান্ত নিয়ে পালিয়ে বিয়ে করেন। বাঁধা হয়ে দাড়ায় কিশোরীর পরিবার। এঘটনায় কিশোরীর পরিবার হালিশহর থানায় অপহরণ মামলা দায়ের করে। তদন্তে নেমে পুলিশ গত ২৬ জানুয়ারি তারা দুজনকে আটক করে।

পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে প্রেমিক প্রেমিকা এবং মুসলিম শরীয়া বিধান অনুসারে আকদ করলেও মেয়ে অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় কোর্ট ম্যারেজ করতে পারেনি। কিশোরীর পরিবারের দায়ের করা মামলায় প্রেমিককে পুলিশ কারাগারে প্রেরণ করে।

পরিবারের অমতে বিয়ে করতে গিয়ে এখন অপহরণের মামলায় হাজতবাস করছেন অভি (ছদ্মনাম)। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, নাবালিকা মেয়েকে অপহরণ করে পাচারের চেষ্টা করেছেন।

 অভিযুক্ত সাইফুল ইসলাম অভি (২৪) পেশায় একজন লেদ মিস্ত্রী। তিনি পাহাড়তলী মৌসমী আবাসিক এলাকার এডভোকেট মাসুদের ভাড়া বাসার সফিকুল ইসলামের পুত্র। গত ১ ফেব্রুয়ারি উদ্ধার হওয়া কিশোরীকে পুলিশ বাবার জিম্মায় ছেড়ে দেয়। তারপর আবারও প্রেমের টানে গত ৯ ফেব্রুয়ারি কিশোরী তার বাবার বাড়ী থেকে পালিয়ে প্রেমিক অভির বাড়ীতে চলে যায়। পুলিশ আবারও প্রেমিকের বাড়ী থেকে কিশোরীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

তারপর ১০ ফেব্রুয়ারি বিকাল সাড়ে তিনটায় চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট এর তৃতীয় আদালতের প্রেরণ করলে আদালত অপ্রাপ্ত বয়স্ক কিশোরীকে ডবলমুরিং ভিকটিম সার্পোট সেন্টারে পাঠালে সেখানে জায়গা সংকুলনে না হওয়ায় আবার মায়ের আবেদনের প্রেক্ষিতে তার জিম্মায় দেয়া হয়।