নিউজটি শেয়ার করুন

বাঁশখালীতে গাছের সাথে বর্বরতা

জসীম উদ্দীন, বাঁশখালী প্রতিনিধি: বাঁশখালীর পূর্ব চাম্বল ৬ নং ওয়ার্ড সংলগ্ন চুরা পাহাড়ে ফলজ, বনজ গাছ কেটে দিল বনদস্যুরা।

বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) সকাল ৬ ঘটিকার সময় ঘটনাটি ঘটে।

জানা যায়,আম, জাম, কাঁঠাল, পেয়ারা, আমলকী, গামারী ও শতবর্ষী বাঁশঝাড় সহ শত শত গাছ কেটে উজাড় করে দিয়েছে চাম্বল এলাকার কিছু দুর্বৃত্ত মহল।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এই গাছ কাটা দেখে শত শত মহিলা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েছে, যেন তাদের নিকট আত্মীয় কে হারিয়েছে। অন্য দিকে তাদের আহাজারিতে পুরো এলাকার পরিস্থিতি থমথমে বিরাজ করছে। সেই সাথে ফলজ গাছ গুলোতে রয়েছে অপরিপক্ক নানান ধরনের ফল।

ভুক্তভোগীরা জানান, স্থানীয় কিছু লোকজন সকাল ৬ টায় থেকে শুরু করে সারাদিন আমাদের গাছ গুলো কেটে দিয়েছে।আমরা বাধা দিতে চাইলে ধারলো অস্ত্র দেখিয়ে আমাদেরকে বাড়িতে বন্দী করে রাখে। তাদের অন্য সদস্যরা গাছগুলো কাটতে থাকে। আমাদের এখানে নানা ধরনের ফলজ,বনজ,ও শতবর্ষী বাঁশঝাড় পর্যন্ত রয়েছে। এই গাছ গুলোর ফল বিক্রি করে আমরা আমাদের জীবন নির্বাহ করি। এমনকি এই গাছের টেনশন করতে করতে আমাদের নিকটাত্মীয় একজন মারা গেছে। আমাদেরকে প্রতিনিয়ত এখন হুমকি দিচ্ছে বাড়িঘর ছেড়ে চলে যেতে বলছে স্থানীয় বনদস্যুরা।

ভুক্তভোগী সূত্রে আরো জানা যায়, আমাদের এখানে প্রতিনিয়ত বৃক্ষ নিধন করার চেষ্টা করতেছে। আমাদের নিজেদের রোপন করা প্রায় পাঁচশ ফলজ বনজ ও বড় বড় গাছ কেটে দিয়েছে এবং আমাদের শতবর্ষী একটি বাঁশঝাড় কেটে দিয়েছে।

একই সাথে আমাদের বসত ঘর ভাংচূর করেছে। সব গুলোর আনুমানিক মূল্য ৬ লক্ষ টাকা হবে। আমাদের মোট বার পরিবারের একটি পুকুর ছিল ঔ পুকুরে নানা প্রজাতির মাছ ছিল সব গুলো তারা নিয়ে গেছে। কে বা কার এসব তাণ্ডব চালিয়েছে জিজ্ঞেস করলে তারা বলেন, আমাদের পার্শ্ববর্তী এলাকার মৃত কাছিম আলীর পুত্র শমসুল আলম (৪০),নূর আহমদ (৪৫),ফরিদ আহমদ (৪২), মৃত আব্দুল কাদের এর পুত্র আবু হানিফ (১৯), আব্দুল করিম (২২), আব্দুল হালিম (২৫), মৃত ইমাম শরীফের পুত্র ছিদ্দিক আহমদ (৫৫) মৃত কালুর পুত্র মোক্তার আহমদ (৫০) সহ প্রায় ২০ থেকে ৩০ জন লোক এসে আমাদের এই বর্বরতা এবং তাণ্ডব চালায়।

একজন ভিক্ষুক বলেন, আমি দিনে পাড়ায় পাড়ায় গিয়ে ভিক্ষা করে যা পাই তা নিয়ে আমার ঘরে থাকি তবে গতকাল আমার বাড়িতে ও তারা ভাংচূর চালায়। আমাদের সার্বজনীন একটা সেনেটারী টয়লেট আছে এটা ও ভেঙে দেয়।

এ ব্যাপারে বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে আমরা অভিযোগ দিলে তিনি বাঁশখালী থানাকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য অনুরোধ করেন।

উক্ত ঘটনার তদন্তকারী কর্মকর্তা বাঁশখালী থানার এসআই দীপক কুমার সিংহ মুঠোফোনে বলেন, আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত করে আসছি। তবে কি জন্য কাটছে কেন কাটছে সবকিছু তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সেই সাথে এখানে নানান ধরনের ফলজ বনজ গাছ কেটে নিধন করা হয়েছে উক্ত ঘটনায় প্রকৃত আসামিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন তিনি।

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments