নিউজটি শেয়ার করুন

‘ডোন্ট লাভ মি বিচ’ লেখার কারণ জানালেন পরীমনি

‘ডোন্ট লাভ মি বিচ’ লেখার কারণ জানালেন পরীমনি

সিপ্লাস ডেস্ক: বুধবার সকালে জেল থেকে ছাড়া পেয়ে ডানা মেলে উড়েছেন ঢাকাই সিনেমার ‘ডানাকাটা পরী’খ্যাত চিত্রনায়িকা পরীমনি।

কারণ, ২৬ দিনের বন্দিজীবন থেকে মুক্তি মিলেছে তার। আর মুক্তির পরেই পরী তাকে ভালো না বাসার বার্তা দিয়েছেন।

তবে পরীর বার্তা মেহেদিরাঙা হাতে। ডান হাতে পরী ইংরেজি অক্ষরে লিখেছেন ‘ডোন্ট লাভ (লাভ চিহ্ন) মি, বিচ’। পরীর এই বার্তা নিয়ে ইন্টারনেটে চলছে তুমুল আলোচনা।

সেই লেখার কারণ নিজেই জানিয়েছেন পরীমনি। তিনি জানান, এটা তিনি ‘বিচ’দের উদ্দেশ্যেই বলেছেন। পরীমনি বলেন, যারা বিচ তাদের উদ্দেশ্যে এমন কথা বলেছি। লেখাটা পড়ে যাদের মনে হবে, আল্লাহ, আমাকে নিয়ে এটা লিখল—তাদের উদ্দেশ্যেই এই লেখা।

ঢালিউড নায়িকা বলেন, ওদের তালিকা তো আমি নাম ধরে বলতে পারব না। আমাকে আটক, গ্রেফতার এবং কারাগারে নিয়ে যাওয়ার পর তাদের জীবন সার্থক মনে হয়েছে।

পরীমনি বলেন, কেউ কেউ তো খুশিতে নাচাও শুরু করেছে। যেই আমি ফিরে আসছি, অনেকে আবার মিস ইউ, লাভ ইউ বলা শুরু করছে। এই ধরনের ভালোবাসা আমার দরকার নাই। আমি তাদেরকেই বলেছি, তোমরা আমাকে ভালোবাইসো না। আমি যাদের জন্য পরীমনি, যারা সত্যি সত্যি আমাকে অন্তরের মধ্যে বসাইয়ে রাখছে, তাদের আমি সব সময় ভালোবাসি। আজীবন ভালোবাসি।

এদিকে বাসা ছাড়ার নোটিশ দেওয়া হয়েছে পরীমনিকে। বুধবার বাসায় ফেরার পর সন্ধ্যায় বলেন, বাসায় এসেই শুনি বাসা ছাড়ার নোটিশ দেওয়া হয়েছে। এতো জলদি কোথায় বাসা পাবো, কিছুই বুঝছি না। এইসব কেন করা হচ্ছে আমার সঙ্গে?

বুধবার সকাল ৯টা ২১ মিনিটে মাদক মামলায় জামিনে মুক্ত হয়েছেন পরীমনি। আইনজীবী নীলাঞ্জনা রিফাত সুরভীর কাছে তাকে হস্তান্তর করেন কাশিমপুর কারা কর্তৃপক্ষ। ৯টা ৩৭ মিনিটে নিজের গাড়িতে করে বের হন পরী।

এ সময় পরীমনি গাড়িতে দাঁড়িয়ে উপস্থিত জনতার উদ্দেশে হাত নাড়েন। মুক্তির পর খুবই হাস্যোজ্জ্বল দেখাচ্ছিল চিত্রনায়িকাকে। তিনি সাদা টি-শার্ট পরে ছিলেন। তার মাথায় সাদা ওড়না পেঁচানো আর চোখে ছিল রোদচশমা। মাস্কও পরেছিলেন সাদা। গাড়িতে দাঁড়িয়ে তিনি সেলফি তোলেন। ভিড়ের মধ্যে কয়েক জন ভক্তের সঙ্গে হাতও মেলান। এ সময় গণমাধ্যমকর্মীরা প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে পরীমনি শুধু বলেন, ‘থ্যাংক ইউ, ধন্যবাদ।’

গত ৪ আগস্ট বিকালে পরীমনির বনানীর বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় তার বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ বিদেশি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের দামি মদ, মদের বোতলসহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য জব্দ করা হয়। ওই দিন রাত সোয়া ৮টার দিকে বনানীর বাসা থেকে পরীমনিকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র্যাব সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়।

পরে তার বিরুদ্ধে বনানী থানায় মাদক মামলা করা হয়। ওই মামলায় গত ৫ আগস্ট পরীমনিকে চার দিন ও ১০ আগস্ট দ্বিতীয় দফায় দুদিনের রিমান্ডে পাঠান আদালত।

পরে ১৩ আগস্ট পরীমনির জামিন আবেদন নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ধীমান চন্দ্র মণ্ডল। আদালতের আদেশে ওই দিন সন্ধ্যা ৭টার দিকে প্রিজনভ্যানে করে পরীমনিকে কাশিমপুর মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়। এর পর ওই কারাগার থেকে গত ১৯ আগস্ট তৃতীয় দফায় পরীমনিকে একদিনের রিমান্ডে ঢাকায় নেওয়া হয়। রিমান্ড শেষে ২১ আগস্ট পুনরায় পরীমনিকে কারাগারে পাঠানো হয়।

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments