নিউজটি শেয়ার করুন

টানা তিনবার উপকমিটির সদস্য হয়েও পদোন্নতি পেলেন না ওয়েল ফুডের ইসলাম

সিপ্লাস প্রতিবেদক: টানা তিনবার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ কমিটির সদস্য হয়েও পদোন্নতি পেলেন না ওয়েল গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এবং ওয়েল গ্রুপের চেয়ারম্যান সৈয়দ নুরুল ইসলাম।

বুধবার (৩ ফেব্রুয়ারি) হোসেন তওফিক ইমামকে চেয়ারম্যান ও ড. আব্দুস সোবহান গোলাপকে সদস্য সচিব করে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা কমিটি গঠন করা হয়। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার সম্মতিতে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এ কমিটি অনুমোদন দেন।

চট্টগ্রামের চান্দগাঁও থানার মোহরা এলাকার বনেদী শিল্পপতি ও রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান সৈয়দ নুরুল ইসলাম স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি। তিনি দীর্ঘদিন ধরে চট্টগ্রামের রাজনীতিতেও সক্রিয়। তিনি সদ্য ঘোষিত স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টাও মনোনীত হয়েছেন।

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সাবেক চেয়ারম্যান ও নগর আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ আব্দুচ ছালামের ছোট ভাই সৈয়দ নুরুল ইসলাম দেশের পোশাকখাত ও খাদ্য ব্যবসার সফল উদ্যোক্তা। এছাড়া ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বারসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃত্ব দেওয়ার পাশাপাশি ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের রাজনীতিতেও সক্রিয় ছিলেন তিনি।

নুরুল ইসলামের বড় ভাই আবদুচ ছালাম চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের কয়েক মেয়াদে চেয়ারম্যান থাকা কালে কোন মন্ত্রী এমপি সিনিয়র নেতাকে পাত্তা দিতেন না। এমনকি বেশিরভাগ নেতার সাথে তার সুসম্পর্ক ছিলনা বলে কথিত আছে।  আর সৈয়দ নুরুল ইসলাম ঢাকায় অবস্থান করে বিভিন্ন মন্ত্রীসহ উচ্চ পদের ব্যক্তির সাথে সুসমম্পর্ক রক্ষা করতেন।

চট্টগ্রামের রাজনীতিক মহলে প্রচলিত আছে সৈয়দ নুরুল ইসলাম মন্ত্রী এমপিদের সাথে সম্পর্ক রক্ষার পাশাপশি তাদের মন রক্ষার চেষ্টা করতেন। এসব উচ্চ পদের ব্যক্তিদের বাসায় পৌঁছে যেতো ওয়েল ফুডের বেলা বিস্কুট সহ বিভিন্ন খাবার আর চট্টগ্রামে আসলে থাকতো ওয়েল পার্কের আথিতেয়তা  । কিন্তু এই সব খাইয়েও তার পদোন্নতি না হওয়ায় অনেকে বিষয়টি নিয়ে মজা করছেন।

এ বিষয়ে জানতে সৈয়দ নুরুল ইসলাম এর মোবাইল ফোনে বেশ কয়েকবার কল দেওয়ার পাশাপশি ক্ষুদেবার্তা পাঠানো হলেও  তিনি কল রিসিভ না করায় কথা বলা সম্ভব হয়নি।