নিউজটি শেয়ার করুন

চট্টগ্রামে ১৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা মূল্যের গাঁজাসহ আটক ৩

চট্টগ্রামে ১৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা মূল্যের গাঁজাসহ আটক ৩

সিপ্লাস প্রতিবেদক: চট্টগ্রামের রাউজান ও আকবরশাহ্ এলাকা থেকে আনুমানিক ১৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা মূল্যের ৮৮ কেজি গাঁজাসহ ৩ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে র‌্যাব। এ সময় মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত দুইটি মাইক্রোবাস জব্দ করা হয়।

শনিবার (২১ আগস্ট) পৃথক অভিযানে তাদেরকে আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন, শ্যামল চন্দ্র দে (৩৩) (ড্রাইভার), পিতা- বাবুল চন্দ্র দে, সাং- মির্জাপুর, থানা- সোনাগাজী, জেলা- ফেনী, আব্দুল মান্নান ভুইয়া রিয়াজ (২৩), পিতা- আব্দুল লতিফ, সাং- উত্তর সালেহপুর, থানা- ফেনী সদর, জেলা- ফেনী, এবং  মোঃ ইউসুফ মিয়া (৫০), পিতা- মৃত অলি আহম্মেদ, সাং- শিরজী পাড়া, থানা- লাঙ্গলকোট, জেলা- কুমিল্লা।

র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মোঃ নূরুল আবছার আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাউজান এলাকায় কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী মাদক দ্রব্য ক্রয় বিক্রয় করার সময় অভিযান পরিচালনা করলে র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে থামানো অবস্থায় একটি মাইক্রোবাস হতে সু-কৌশলে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে র‌্যাব সদস্যরা ধাওয়া করে মোঃ ইউসুফ মিয়া (৫০)কে আটক করা হয়।

এ সময় মাইক্রোবাসের পিছনে সিটের উপর রাখা বস্তার ভিতর হতে ৬৮ কেজি গাঁজা উদ্ধারসহ আসামীকে গ্রেফতার করা হয় এবং মাইক্রোবাসটি জব্দ করা হয়। উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্যের আনুমানিক মূল্য ১০ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা।

একই সময়েেআরেকটি গোপন তথ্যের ভিত্তিতে নগরীর আকবরশাহ্ এলাকায় মহাসড়কের উপর একটি বিশেষ চেকপোস্ট স্থাপন করে গাড়ি তল্লাশি শুরু করে। এসময় র‌্যাবের চেকপোস্টের দিকে আসা একটি মাইক্রোবাস এর গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হলে র‌্যাব সদস্যরা মাইক্রোবাসটিকে থামানোর সংকেত দিলে মাইক্রোবাসটি র‌্যাবের চেকপোস্টের সামনে থামায়। এসময় মাইক্রোবাস হতে দুইজন ব্যক্তি নেমে দ্রুত পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে র‌্যাব সদস্যরা ধাওয়া করে শ্যামল চন্দ্র দে (৩৩) (ড্রাইভার) ও আব্দুল মান্নান ভুইয়া রিয়াজ (২৩)কে আটক করা হয়।

এ সময়ে মাইক্রোবাসের ভিতর বস্তা তল্লাশি করে ২০ কেজি গাঁজা উদ্ধারসহ আসামীদের গ্রেফতার করা হয় এবং উক্ত মাইক্রোবাসটি জব্দ করা হয়। উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্যের আনুমানিক মূল্য ৩ লক্ষ টাকা।

আটককৃত আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তারা সীমান্তবর্তী এলাকা হতে মাদকদ্রব্য সংগ্রহ করে পরবর্তীতে তা চট্টগ্রাম ও ফেনীসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবনকারীদের নিকট বিক্রয় করে আসছে।

আটককৃত আসামী এবং উদ্ধারকৃত আলামত সংক্রান্তে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্তে চট্টগ্রামের সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

 

 

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments