নিউজটি শেয়ার করুন

খুনের ঘটনায় মামলা করতে গিয়ে বাদি আটক, আদালতে জামিন

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাকলিয়ায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ৬০ বছর বয়সী বৃদ্ধ খুন হওয়ার ঘটনায় আটক বৃদ্ধের জামাতা ও মামলার বাদীকে জামিন দিয়েছে আদালত।

০৬ এপ্রিল (মঙ্গলবার) চট্টগ্রাম মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট-১ এর বিচারক মো: শফিউদ্দিনের আদালত এই জামিন আদেশ দেন।

মূলত ৪ এপ্রিল (রবিবার) বেনামি ঘুড়ি নিয়ে দ্বন্ধের জেরে খুন হয় আবদুল মুমিন নামের এক বৃদ্ধ। সে ঘটনায় থানায় মামলা করতে গেলে আসামি পক্ষের পাল্টা মামলায় পুলিশ আটক করে নিহত বৃদ্ধের জামাতা ও মামলার বাদী জাহাঙ্গীর আলমকে।

খুনের ঘটনার মামলার বাদী জাহাঙ্গীর আলমের আইনজীবী এ্যাডভোকেট মুজিবুল হক বলেন, আমার মক্কেল নিহত বৃদ্ধের জামাতা। বেনামি ঘুড়ি নিয়ে শিশুদের মধ্যে তর্কের এক পর্যায়ে যুবক শিশু ও আমার মক্কেলকে মেরে আহত করে ও ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। পরবর্তীতে নিহত আব্দুল মুমিন এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করায় নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় আসামি পক্ষ পরবর্তীতে বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যা করে এবং আমার মক্কেল নিহত ব্যক্তির জামাতা থানায় অভিযুক্তদের নামে মামলা করতে গেলে তাকে আসামীদের করা পাল্টা মামলায় আটক করা হয়। মহামান্য আদালত আজ ঘটনার বিস্তারিত জেনে আমার মক্কেলকে জামিন দিয়েছে।

উল্লেখ্য, নিহত আবদুল মুমিন বাকলিয়া থানার কালামিয়া বাজার মিয়াখান নগরের বাসিন্দা। তার বয়স ৬০ বছর। তিনি তার মেয়ে ইয়াসমিনের বাসায় থাকতেন।

৪ এপ্রিল (রবিবার) তুচ্ছ ঘটনার সূত্র ধরে রাত ৮টার দিকে ওসমান খান সওদাগরের বাড়িতে এই ঘটনাটি ঘটে। নিহত আবদুল মুমিনের মেয়ে ইয়াসমিনের দাবি রিসু, রিয়াদ, সৈয়দ ও লাভলী নামে কয়েকজন মসজিদে যাওয়া পথে পিটিয়ে হত্যা করেছে তার বাবা আবদুল মুমিনকে।

অভিযোগ উঠেছে ঘটনার পরে রাতেই বাকলিয়া থানা পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত একজনকে আটক করে আবার ছেড়ে দেয়। তবে বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রুহুল আমিন জানান, কাউকে আটক করে আবার ছেড়ে দেয়ার ঘটনা ঘটেনি। তবে মামলা হয়েছে, ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসলেই সেই অনুযায়ী তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।