নিউজটি শেয়ার করুন

আ. লীগ রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হওয়ায় জিয়াউর রহমানকে নিয়ে মিথ্যাচার করছে

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির প্রস্ততি সভায় ডা. শাহাদাত হোসেন

সিপ্লাস প্রতিবেদক: আওয়ামী লীগ রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হওয়ার কারণে জিয়াউর রহমানকে নিয়ে মিথ্যাচারে নেমেছে বলে অভিযোগ করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির আহবায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন।

রবিবার (২৯ আগষ্ট) বিকালে নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয়ে পহেলা সেপ্টেম্বর বিএনপির ৪৩ তম প্রতিষ্টাবার্ষিকী সফল করার লক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির প্রস্ততি সভায় সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান ও চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া সম্পর্কে দেয়া আওয়ামী লীগের বক্তব্য রুচিহীন ও নির্লজ্জ মিথ্যাচার। এ ধরনের বক্তব্য ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার শামিল। করোনা ব্যবস্থাপনায় সরকারের ব্যর্থতা ঢাকতে এবং জনগনের দৃষ্টি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতেই এই মিথ্যাচার শুরু করেছে।

তিনি চট্টগ্রামের এক মন্ত্রীর সমালোচনা করে বলেন, চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে শুধু শহীদ জিয়াউর রহমান ও তার সাথে কিছু সেনা অফিসার শাহাদাৎ বরণ করেছেন। এটা চট্টগ্রামবাসী সহ সবাই জানে। এর বাইরে যদি অন্য কেউ শহীদ হয়ে থাকেন তাহলে তার দালিলিক প্রমান দিন।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার অবৈধভাবে ক্ষমতায় আসার পর থেকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করার অংশ হিসেবে জিয়াউর রহমানকে নিয়ে ষড়যন্ত্র ও অপপ্রচার চালিয়ে আসছে। তারই অংশ হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখার জন্য দেওয়া বীর উত্তম খেতাব কেড়ে নিতে উঠেপড়ে লেগেছে। কাজীর দেউড়ি জিয়া স্মৃতি জাদুঘরের নাম মুছে ফেলার জন্য বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্য দিচ্ছে।

শহীদ জিয়ার স্বাধীনতা ঘোষণার ইতিহাসকে বিকৃত করে নতুন প্রজন্মের কাছে বিকৃত ইতিহাস উপস্থাপন করছে। কিন্তু দেশের মানুষ এখন তাদের এসব মিথ্যা ভিত্তিহীন কথা বিশ্বাস করে না। কারণ এই চট্টগ্রামের মাটিতে জিয়াউর রহমান শাহাদাৎ বরণ করেছেন এবং সার্কিট হাউসে মিশে আছে শহীদ জিয়ার রক্ত। জিয়াউর রহমানকে নিয়ে কোনো ষড়যন্ত্র হলে চট্টগ্রামবাসী তার কঠোর জবাব দিবে।

ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, চট্টগ্রামের কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন। মেজর জিয়া ছিলেন রনাঙ্গনের বীর মুক্তিযোদ্ধা, সাবেক সেনাপ্রধান এবং বাংলাদেশের একজন সফল রাষ্ট্রনায়ক। মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বের জন্য স্বাধীনতা পরবর্তী সরকার তাকে বীর উত্তম খেতাবে ভূষিত করেছে। অনেকে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস না জেনে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।

কিন্তু শহীদ জিয়াকে বাদ দিয়ে মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাস রচনা করা সম্ভব নয়। মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার অপর নাম জিয়াউর রহমান। জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের আপামর মানুষের হৃদয়ে মেজর জিয়া নামেই প্রতিষ্ঠিত হয়ে থাকবেন।

প্রস্তুতি সভায় পহেলা সেপ্টেম্বর বুধবার সকাল সাড়ে দশটায় নগরীর দুই নম্বর গেইট বিপ্লব উদ্যোনে পুস্পস্তবক অর্পণ, বিকাল তিনটায় নাসিমন ভবন দলীয় কার্যায় মাঠে আলোচনা সভা, ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে আলোচনা সভা ও জিয়াউর রহমানের ভাষণ প্রচার করার সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়েছে। এছাড়াও সপ্তাহব্যাপী ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়।

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সদস্য মো. কামরুল ইসলামের পরিচালনায় উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম আহবায়ক মো. মিয়া ভোলা, এডভোকেট আবদুস সাত্তার, এস.কে খোদা তোতন, শফিকুর রহমান স্বপন, ইসকান্দর মির্জা, আবদুল মান্নান, সদস্য জয়নাল আবেদিন জিয়া, হারুন জামান, হাজ্বী মো. আলী, এস এম আবুল ফয়েজ, আর.ইউ চৌধুরী শাহীন, আহমেদ উল আলম চৌধুরী রাসেল, আবুল হাশেম, মঞ্জুরুল আলম চৌধুরী মঞ্জু, থানা বিএনপির সভাপতি মনজুর রহমান চৌধুরী, মামুনুল ইসলাম হুমায়ুন, মো. সালাউদ্দীন, আবদুল্লাহ আল হারুন, নগর মহিলা দলের সভানেত্রী মনোয়ারা বেগম মনি, নগর বিএনপির নেতা শিহাব উদ্দীন মুবিন, এড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, ডা. এস এস সারোয়ার আলম, মো. নুরুজ্জামান, ইব্রাহিম বাচ্চু, এমআই চৌধুরী মামুন, আবদুল বাতেন, থানার সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জাকির হোসেন, হাজ্বী বাদশা মিয়া, জসিম উদ্দীন জিয়া, শরীফ উদ্দীন খান, আবদুল কাদের জসিম, হাবিবুর রহমান, নগর বিএনপির নেতা আবদুল হালিম স্বপন, সালাউদ্দীন কায়সার লাভু, মো. ইদ্রিস আলী, আজাদ বাঙালী, আলী আজম চৌধুরী, হাশেম সওদাগর, আরিফ মেহেদী, ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি আকতার খান, হাজী নবাব খান, এস এম মফিজ উল্লাহ, কাজী শামসুল আলম, হাজী মো. ইলিয়াস, মঞ্জুর আলম, আলী আব্বাস খান, ইলিয়াছ চৌধুরী, মো. আসলাম, হুমায়ুন কবির সোহেল, ফারুক আহমেদ, রফিক চৌধুরী, মো. বেলাল, রাসেল পারভেজ সুজন, ওয়ার্ড সাধারণ সম্পাদক সাদেকুর রহমান রিপন, হাবিবুর রহমান চৌধুরী, এম. এ হালিম বাবলু, সিরাজুল ইসলাম মুন্সী, হাজী এমরান উদ্দীন, জসিম মিয়া, হাসান ওসমান, মনজুর কাদের, শফি উল্লাহ, নগর মৎস্যজীবি দলের আহবায়ক হাজী নুরুল হক চৌধুরী, তাতী দলের আহবায়ক মনিরুজ্জামান টিটু, সদস্য সচিব মনিরুজ্জামান মুরাদ প্রমুখ।

0 0 votes
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments