নিউজটি শেয়ার করুন

অবশেষে পূর্ণাঙ্গ হল ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি

সিপ্লাস ডেস্ক: ২০১৯ সালের ১৭ ডিসেম্বর বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির ৩২টি পদ শূন্য ঘোষণা করা হয়। এরই মধ্যে শূন্য হয়েছে বিশেরও অধিক পদ। শূন্য হওয়ার দীর্ঘ ১৩ মাস পর পূরণ করা হয়েছে ছাত্রলীগের ৬৮টি পদ।

রবিবার (৩১ জানুয়ারি) রাতে ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়।

ঘোষিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে অনুযায়ী সহ-সভাপতি পদ পেয়েছেন, মো. সাইফ উদ্দিন বাবু, সাগর হোসেন সোহাগ, রায়হন কাওসার, রাকিব হোসেন, রানা হামিদ, আনন্দ সাহা পার্থ, শেখ সাগর আহমেদ, শুভ্রদেব হালদার, দেবাশীষ সিকদার সিদ্ধার্থ, আরিফ ইবনে আলী, আরিফ হোসেন রিফাত, জিয়াসমিন শান্তা, তিলোত্তমা শিকদার, শাহরিয়ার সিদ্দিকী শিশিম, ফরিদা পারভীন, উৎপল বিশ্বাস, মো. ওমর ফারুক, মিজানুর রহমান পিকুল, মুরাদ হায়দার টিপু, ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী সজীব, রাকিবুল হাসান নোবেল, খাদিজাতুল কুবরা, মো. মহিন উদ্দিন, রকিবুল ইসলাম ঐতিহ্য এবং জেসমিন আরা রুমা।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে মনোনয়ন পেয়েছেন আব্দুল জাব্বার রাজ, দপ্তর সম্পাদক পদে ইন্দ্রনীল দেব শর্মা রনি, সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে মেহেদী হাসান সানি, পাঠাগার সম্পাদক পদে সৈয়দ ইমাম বাকের, তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক পদে খন্দকার জামিউস সানি, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক পদে তুহিন রেজা, স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সেবা বিষয়ক সম্পাদক পদে খালিদ মাহমুদ ফয়সাল, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় পদে আল আমিন রহমান, উপ-প্রচার সম্পাদক পদে ফেরদৌস মাহমুদ পলাশ, উপ দপ্তর সম্পাদক পদে সজীব নাথ এবং মিরাজুল ইসলাম খান শিমুল।

উপগ্রন্থণা ও প্রকাশনা সম্পাদক পদে আছেন তন্ময় দেবনাথ, আমান উল্লাহ আমান, উপ-সংস্কৃতি সম্পাদক পদে আছেন মো. মোরশেদুর রহমান আকন্দ, শেখ নাজমুল, মো. মাইনুল হাওলাদার এবং ইসমাঈল হোসেন, উপ-সমাজসেবা সম্পাদক পদে তানভীর হাসান সৈকত, আন্তর্জাতিক সম্পাদক পদে সামাদ আজাদ জুলফিকার, উপ-পাঠাগার সম্পাদক পদে এম আর মুকুল ইসলাম এবং আনোয়ার হোসেন, উপ-তথ্য গবেষণা পথে মো. আব্দুর রশিদ রাফি, এহসান পিয়াল, উপ অর্থ বিষয়ক সম্পাদক পদে মো. আতিকুল ইসলাম আতিক, উপ-আইন বিষয়ক সম্পাদক পদে শাহেদ খান, উপ-স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সেবা বিষয়ক সম্পাদক পদে রাজেষ বৈশ্য, জেরিন শিকদার, সাধন বিশ্বাস, মো. রিজভান আহমেদ, উপ ছাত্রবৃত্তি সম্পাদক পদে মাহফুজুর রহমান, উপ কর্মসংস্থান বিষয়ক সম্পাদক পদে শাহজাহান ভূঁইয়া শামীম।

এছাড়া সহ-সম্পাদক পদে মনোনয়ন পেয়েছেন ফারুকুল ইসলাম (ফারুক বেপারী), ফাইজুল ইসলাম সজীব, শেখ রেজওয়ান আলী, আয়শা আক্তার সুমি, এম সাইফুল ইসলাম সাইফ, এইচএং রোমান মাহমুদ, মো. রুবেল শিকদার, মীর সাব্বির, জাহিদুল ইসলাম নোমান, এবনহ সদস্যপদে সাজিদ আহমেদ দীপ্ত এবং আলী হোসেন আলম।

নতুন অন্তর্ভুক্ত হওয়া ৫২ জনের মধ্যে স্থান পায় চট্টগ্রামের দুজন। এর মধ্যে মিরসরাইয়ের বাসিন্দা রায়হান কায়সারকে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ সভাপতি এবং  চকরিয়ায় আনোয়ার হোসেন পেয়েছেন উপ পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক।

এর আগে ২০১৯ সালের ১৭ ডিসেম্বর বিতর্কিত ও গঠনতন্ত্রবহির্ভূত কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে ৩২ নেতাকে কমিটি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। তাদের ২১ জনের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় কমিটির কিছু নেতার তোলা অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ছাত্রলীগের কমিটি থেকে বাদ পড়া ২১ নেতা-নেত্রী হলেন সহসভাপতি তানজিল ভূঁইয়া, আরেফিন সিদ্দিক, আতিকুর রহমান খান, বরকত হোসেন হাওলাদার, শাহরিয়ার কবির, সাদিক খান, সোহানী হাসান, মুনমুন নাহার, আবু সাঈদ, রুহুল আমিন, রাকিব উদ্দিন, সোহেল রানা, ইসমাইল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক আহসান হাবীব, ধর্মবিষয়ক সম্পাদক তাজ উদ্দীন, উপদপ্তর সম্পাদক মমিন শাহরিয়ার ও মাহমুদ আবদুল্লাহ বিন মুন্সী, সংস্কৃতিবিষয়ক উপসম্পাদক বি এম লিপি আক্তার ও আফরিন লাবণী, সহসম্পাদক সামিয়া সরকার ও রনি চৌধুরী।